করোনা ভাইরাস থাবা বসিয়েছে ক্রীড়া বিশ্বে। কোভিড ১৯-এর জেরে পৃথিবী জুড়ে বন্ধ সমস্ত ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট। ক্রিকেট, ফুটবলের মত একের পর এক টুর্নামেন্ট বাতিল হয়েছে টেনিসের ক্ষেত্রেও। স্থগিত বা তালি হয়ে গিয়েছে একাধিক মেজর টেনিস প্রতিযোগিতা। সেপ্টেম্বর মাাস পর্যন্ত পিছিয়ে গিয়েছে ফ্রেঞ্চ ওপেন। এবছরের মত বাতিল হয়ে গিয়েছে উইম্বেলডন। তালিকায় রয়ছে আরও নাম। ফলে পরিস্থিতি যদি কিছুটা স্বাভাবিক হয় তাহলে বন্ধ দরজার পিছোনে ও অর্থাৎ দর্শকহীন স্টেডিয়ামেও খেলতে রাজি ভারতীয় টেনিস স্টার সানিয়া মির্জা।

আরও পড়ুনঃতবলঘি জামাতের বিরুদ্ধে টুইট করে কোনও ভুল করেননি, মনে করেন ববিতা ফোগত

এক সাক্ষাতকারে দর্শকহীন স্টেডিয়ামে খেলার বিষয়ে আগ্রহী কিনা জানতে চাওয়া হয় সানিয়া মির্জার কাছে। জবাবে টেনিস তারকা বলেন, 'পরিস্থিতির কথা বিচার করে আমার ব্যক্তিগত মত হ্যা। তাছাড়া এই মূহুর্তে অন্য কোনও উপায়ও নেই। আমি মানছি যে আমরা দর্শকদের জন্যঅ খেলি। মাঠে দর্শকরা থাকলে ও আপনার জন্য গলা ফাটালে পরিবেশটাই অন্যরকম হয়। আমরা যদি ভাবি দর্শক ছাড়া খেলবা না, তাহলে বর্তমানে টেনিস খেলা আর সম্ভব নয়। সেটা কী খুব একটা ভাল বিষয় হবে? এছাড়া দর্শকরা মাঠে আসলে সেটা ঝুঁকিসাপেক্ষ। তবে করোনা পরিস্থিতিতে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় খেলতে যাওয়াটাও সমস্যার হতে পারে।'  এছাড়াও সানিয়া মির্জা বলেন, সন্তান হওয়ার পর আমি ২ বছর অপেক্ষা করেছি টেনিসে ফেরার জন্য। কঠোর পরিশ্রম করেছি। তাই বর্তমানে সকলের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে ও টেনিসে ফেরার জন্য আমি ফঁকা স্টেডিয়ামেও টেনিস খেলতে প্রস্তুত।

আরও পড়ুনঃভারতীয় মহিলা হকি দলের ১৮ দিনের ফিটনেস চ্যালেঞ্জ,যার মাধ্যমে সংগ্রহ করা হবে অনুদান

আরও পড়ুনঃকরোনা যুদ্ধে জয়ী হলেন দুই জুভেন্তাস তারকা ড্যানিয়েল রুগানি ও ব্লেইজ মাতুইদি

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবিও শেয়ার করেছেন সানিয় মির্জা। সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে সানিয়া একটি দেওয়ালে হেলান দিয়ে বসে রয়েছেন, হাতে রয়েছে টেনিস র‍্যাকেট এবং চারদিকে ছড়িয়ে রয়েছে অনেক বল। ছবি পোস্ট করে তিনি ক্যাপশনে লেখেন, ‘‘আবার টেনিস খেলার অপেক্ষায় রয়েছি।''সানিয়ার জন্য বিষয়টি একটু বেশিই কঠিন। তিনি এতটা মরিয়া ফিরতে তার কারণ তিনি সদ্যই কোর্টে ফিরেছিলেন দীর্ঘদিন পর।২০১৮-র অক্টোবরে তাঁর ছেলে ইজহানের জন্ম হয়। তার অনেক আগে থেকেই তিনি কোর্টের বাইরে। এই বছর জানুয়ারি মাসেই সানিয়া কোর্টে ফিরেছিলেন। ফিরেই সবাইকে চমকে দিয়ে মহিলাদের হোবার্ট আন্তর্জাতিক ডবলস টাইটেল জিতে নেন তিনি। এখানে তিনি জুটি বেঁধেছিলেন নাদিয়া কিচেনকের সঙ্গে। এটিই ছিল তাঁর কামব্যাক টুর্নামেন্ট। কিন্তু তারপরই করোনার কারণে স্থগিত হয়ে যায় সব টুর্নামেন্ট। ফলে টেনিসে ফিরতে যে মরিয়া তিনি তা ফাঁকা স্টেডিয়ামে খেলার কথায় সম্মতি দিয়ে আরও একবার বুঝিয়ে দিয়েছেন বলেই মনে করছেন টেনিস বিশেষজ্ঞরা।