করোনা মোকাবিলায় সংক্রমণ রুখতে ২১ দিনের লকডাউনের ঘোষণা করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার আগে একদিনের জনতা কার্ফুরও ডাক দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য পিএম কেয়ার্স ফান্ড গড়ে সকলকে আহ্বান জানিয়েছেন অনুদান দেওয়ার জন্য। নিজেদের সাধ্য মত প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করছেন দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টরা। করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন দেশের ক্রীড়াবিদরা। সোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে একাধিকবার দেশবাসীর সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি পিএম কেয়ার্স ফান্ডেও অনুদান দিয়েছেন ক্রিকেটার, ফুটবলার থেকে অ্যাথলিটরা।  মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য দেশের ক্রীড়াক্ষেত্রের ৪০ জন বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্বর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠক করলেন প্রদানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

আরও পড়ুনঃনিজেদর ঘরোয়া মুহূর্তের ছবি শেয়ার করে ফের সামাজিক সচেতনাতার বার্তা বিরুষ্কার

২৪ মার্চ দেশজুড়ে লকডাউন জারির পর প্রথম ক্রীড়াব্যক্তিত্বদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন প্রধানমন্ত্রী। শুক্রবার সকালে সেই ভিডিও বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, বিরাট কোহলি, শচীন তেণ্ডুলকর, মেরি কমের মতো ব্যক্তিত্বরা। বিশ্বব্যাপী মহামারি পরিস্থিতি নিয়ে প্রত্যেকের সঙ্গে আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে তাঁদের এগিয়ে আসার বার্তা দেন মোদী।  সৌরভ-শচীন-বিরাট ছাড়াও এই ভিডিও কনফারেন্সে ছিলেন পিটি উষা, পুল্লেলা গোপীচাঁদ, বিশ্বনাথন আনন্দ, হিমা দাস, বজরং পুনিয়া, পিভি সিন্ধু, রোহিত শর্মা, বীরেন্দ্র শেহওয়াগ, যুবরাজ সিং এবং চেতেশ্বর পূজারার মতো ক্রীড়াব্যক্তিত্বরা। এই বৈঠকে করোনা ভাইরাস নিয়ে সচেতনতা ও সতর্কতা অবলম্বনের উপর জোর দেওয়া ছাড়া দেশের পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয়। সচেতনতা বৃদ্ধিতে ক্রীড়াব্যক্তিত্বদের এগিয়ে আসার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। 

 

 

আরও পড়ুনঃ'গোটা দেশের হয়ে ক্ষমা চাইছি', উত্তর-পূর্বের মানুষের কাছে হাতজোড় করলেন ভারত অধিনায়ক

আরও পড়ুনঃকরোনার জেরে পিছিয়ে গেল ২০২৭ এশিয়ান কাপের আয়োজক দেশ বেছে নেওয়ার ডেড লাইন

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একে একে আলোচনা করেন সকল ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা। দেশের জন্য সবসময় পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন প্রাক্তন ভারত অধিয়াক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সচিন তেন্ডুলকর বলেছেন, দেশের হয়ে যে কোনও পজিশনে খেলতে রাজি তিনি। প্রধানমন্ত্রী তথা দেশবাসীর পাশ থাকার বার্তা দিয়েছেন দেশের অন্যান্য সকল ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা। করোনা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তারা তাদের সাধ্যমত সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির চেষ্টা করবেন বলে জানিয়েছেন সকলে। একইসঙ্গে গোটা দেশকে এই লড়াইয়ে একসাতে লড়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একমত ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা।