সাজছে ইডেন, সাজছে শহর। তিলোত্তমার ক্রিকেট অনুরাগীদের বাড়ছে ভির ইডেন গার্ডেন্সের সামনে। ২২ নভেম্বর থেকে ইডেনে যে বসতে চলেছে চাঁদের হাট। একই সঙ্গে ভারত-বাংলাদেশ ঐতিহাসিক টেস্ট। সৌরভ-সচিন জামানা শেষ। এবার পিঙ্ক বলের দ্বৈরথ বিরাটদের কাঁধে। সব মিলিয়ে যেন ফের একবার ময়দান চত্বরে উৎসবের মহল। বাঙালির দুর্গা পুজোতে প্যান্ডেলে প্যান্ডেলে থাকে এই ধরনের উত্তেজনা। তবে এবার সেই উত্তেজনাই ক্রিকেটের নন্দন কাননে সরব। এটা কোনও ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ নয়। নাই বা হল বিশ্বকাপের ফাইনাল। টেস্ট ক্রিকেট নিয়েই এত মাতামাতি বোধয় এই প্রথম ভারতবর্ষে। এর আগেও বহু ম্যাচে টিকিটের হাহাকার দেখা গিয়েছে ভারতে। একই সঙ্গে জমিয়ে চলেছে ময়দানে টিকিটের কালো বাজারি। তবে এতটা মাতামাতি কি না টেস্ট ক্রিকেট ঘিরে? অনলাইনে ৩০ হাজার টিকিট শেষ চোখের নিমেষে। আর সেটাই নিশ্চিত করে দিয়েছে ভরা ইডেনেই নামবেন বিরাট অ্যান্ড কোং। মাত্র ৩ সেকেন্ডে সৌরভের কথায় পিঙ্ক বল টেস্ট খেলতে রাজি হয়েছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক। আর সেই বিরাটদের নিয়েই এবার মাতবে ইডেন। তাঁর আগে এই সাফল্যে বেশ খুশি হয়েছেন বোর্ড সভাপতি সৌরভও।

আরও পড়ুন, ইডেন মাতাবে টিঙ্কু-পিঙ্কু, গঙ্গা থেকে ময়দান শহরে শুরু গোলাপি বিপ্লব

মহারাজ এই বিষয় নিয়ে রবিবার রাতে বলেন, 'বিরাট মেনে গিয়েছিল আমার কথা। আমারও তো একটা কর্তব্য আছে। এবার ভরা ইডেনেই বিরাটরা খেলবে। সেটাই ভেবে ভালো লাগছে। টেস্ট ক্রিকেটের মান দিনে দিনে কমছিল। আর আজ টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। দারুণ সারা পাওয়া যাচ্ছে। সবাইকে একটাই অনুরোধ আসুন খেলা দেখুন ও উপভোগ করুন। আশা করি সবাই আসবে। টেস্ট ক্রিকেটে একটা মোচর দরকার ছিল। আশা করি এটাই সেই কাজটা করে দেবে।'

আরও পড়ুন, দিন রাতের টেস্টের জন্য কতটা তৈরি ইডেনের ২২ গজ, কী বলছেন কিউরেটর

একই সঙ্গে বিরাটদের নিয়ে তিনি বলেন, 'বিরাট কোহলি খেলবে ভরতি ইডেনে। দারুণ একজন ক্রিকেটার বিরাট। ভালো ক্রিকেটাররা খালি মাঠে ক্রিকেট খেললে খুব একটা ভালো লাগে না দেখতে। বিরাট খুব খুশি হবে এত দর্শক দেখে। ইন্ডিয়া টিম খুব ভালো টিম। একটা টেস্ট জিতেছে। এটাও জিতবে। সব থেকে বড় কথা এবার ইডেনের পরিবেশটা সবাই খুব উপভোগ করবে। বিশ্বের সব দেশে হয়েছে, এখানেও হচ্ছে। এটা কোনও পাকিস্তান-ভারত ম্যাচ নয়। সেটা হলে তো ভির সব জায়গায় হয়ে যায়। এটা টেস্ট ক্রিকেট পর পর ৫দিন দর্শক আসন ভরানোটা কঠিন কাজ। সেটা আশা করি হবে। আর এই ম্যাচটা করা বেশ চ্যালেঞ্জের।'