কেরালার মালাপ্পুরমে গর্ভবতী হাতিকে ঘটনায় নিন্দায় সরব গোটা দেশে। নৃশংস এই ঘটনার প্রতিবাদে সোশ্যাল মিডিয়াতেও আছড়ে পড়েছে প্রতিবাদের ঢেউ। সকলেই নিজের মতন করে প্রতিবাদ করছেন। শুধু সাধারণ মানুষ নয়, গর্ভবতী হাতি খুনের ঘটনায় নিন্দায় সরব হয়েছে সমাজের বিভিন্ন স্তরের কৃতি ব্যক্তিত্বরা। বাদ যায়নি ক্রীড়া জগৎও। কাপুরুষোচিত এমন ঘটনার নিন্দা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দায় সরব হলেন দেশের ক্রিকেট ও ফুটবল দলের দুই অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও সুনীল ছেত্রী। ঘটনায় হতবাক দুই ভারত অধিনায়কই। নৃশংস, নির্মম ‘হত্যাকাণ্ড’ মেনে নেওয়া যাচ্ছে না বলে মত তাদের।

আরও পড়ুনঃকরোনা আতঙ্কে ইংল্যান্ডে খেলতে যেতে রাজি হলেন না ৩ ক্যারেবিয়ান ক্রিকেটার

নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ঘটনার প্রতিবাদ করেছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধুনায়ক বিরাট কোহলি। সন্তানসম্ভবা হাতিটির একটি প্রতীকী ছবি পোস্ট করে লিখলেন, ‘কেরলের যা ঘটেছে সেটা শুনে হতবাক আমি। হৃদয় দিয়ে দেশের পশু-পাখিদের পালন করা হোক। অবিলম্বে বন্ধ হোক এমন কাপুরুষোচিত কাজ।’ জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রীও নিন্দায় সরব হয়েছেন মালাপ্পুরমের ঘটনায়। টুইটারে ছেত্রী লিখেছেন, ‘একটা গর্ভবতী হাতি। ওর ক্ষতি করার প্রবৃত্তি মোটেই ছিল না। কিন্তু মানুষ ওর সঙ্গে যেটা করল সেটা দানবীয় একটা কাজ। এর ফল ওদের ভুগতেই হবে। প্রকৃতিকে রক্ষা করতে আমরা বারংবার ব্যর্থ। তাহলে কীভাবে আমরা সবচেয়ে বিবর্তিত প্রজাতি হিসেবে নিজেদের দাবি করতে পারি?’ দুই অধিনায়কই ঘটনায় দোষীদের কঠোর তম শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

 

 

আরও পড়ুনঃসৌরভ,ধোনি নয়,জানেন ইরফান পাঠানের সেরা অধিনায়ক কে

আরও পড়ুনঃবাইক ছেড়ে এবার ট্রাকটর,নয়া বাহনে ধরা দিলেন ধোনি

উল্লেখ্য, গত ২৭মে ক্ষুধার্ত অবস্থায় গর্ভবতী হাতিটি মালাপ্পুরমে একটি গ্রামে ঢুকে পড়েছিল। গ্রামবাসীরা খাওয়ার জন্য দিয়েছিল একটি আনারস।  গ্রামবাসীরা আনারসের মধ্যে ভরে দিয়েছিল বিস্ফোরক বাজি। হাতিটি সেই আনারস খেতেই তা ফেটে যায় হাতিটির মুখের ভিতর। সাঙ্ঘাতিক জখম অবস্থাতেই ঘন্টার পর ঘন্টা স্থানীয় এক নদীর জলে নেমে দাড়িয়ে থাকে মা হাতিটি। জলে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেই মৃত্যু হয় তাঁর। মৃত্যু হয় তার গর্ভস্থ সন্তানেরও। কেরলের মালাপ্পুরমে এক বনকর্মী সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘটনাটি প্রথম তুলে ধরেন। মুহূর্তে এই ঘটনা ছড়িয়ে পড়ে সারাদেশে। পুরো দেশ জুড়ে চলছে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড়।