আশিস মণ্ডল, বীরভূম-নবদ্বীপের পর বীরভূম। মঙ্গলবার বীরভূম সফর করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। তারাপীঠ মন্দিরে পুজো দিয়ে পরিবর্তন যাত্রার সূচনা করেন তিনি। এরপরই, বীরভূমের চিলারমোড়ের সভা থেকে তৃণমূলকে একযোগে আক্রমণ করেন নাড্ডা। বলেন, ''নরেন্দ্র মোদীর হাত ধরেই বাংলার সংস্কৃতি ফিরে আসবে''। সেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ, কৈলাস বিজয়বর্গি, মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র, মুকুল রায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অনেকে।

আরও পড়ুন-'যতদিন বাঁচবো, রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের মতো বাঁচব', বহরমপুরে বিজেপিকে আক্রমণ করে মন্তব্য মমতার

শাসকদলকে নিশানা করে জেপি নাড্ডা বলেন, তৃণমূলের নেতা নেত্রীদের ভাষা শুনে আমার দুঃখ হচ্ছে। এরা মানুষকে সম্মান দিতে জানে না। অনেক হয়েছে মমতা। এবার পরিবর্তন চাইছে জনতা। প্রধানমন্ত্রী মোদীর হাত ধরে বাংলা বদলাবে। স্বচ্ছ প্রকল্প নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বাংলায় আসেন। ৮৫০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ইষ্ট ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ চলছে”। তিনি সরকারের দুর্নীতি প্রসঙ্গে বলেন, “বাংলায় সব কিছুতেই রাজনীতি। আমফানের টাকা চুরি করেছে সরকার। করোনার সময় সরকার চাল, ডাল পাঠিয়েছিল সরকার। কিন্তু সেই চাল ডাল মানুষের কাছে পৌঁছয়নি। ওই চাল ডাল তৃণমূল নেতাদের বাড়িতে পৌঁছে যায়”। 

আরও পড়ুন-'সস্তায় ক্ষমতা পেয়েছেন তো, তাই মস্তি করছেন', বীরভূম থেকে অভিষেককে তোপ নাড্ডার
নাড্ডা আরও বলেন, “এই সরকার নকলের সরকার। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার নাম দিয়েছে বাংলা আবাস যোজনা। স্বচ্ছ ভারত অভিজানের নাম দেওয়া হয়েছে নির্মল বাংলা। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর মনটা নির্মল নয়। বলে রাখি প্রকল্পের নাম বদলে কিছু হবে না। কারন বাংলার মানুষের মন থেকে মোদীর নাম বদলাতে পারবেন না। ধর্ষণে বাংলা প্রথম। বিশেষ করে চা বাগানে আদিবাসীদের উপর এই ধর্ষণের মাত্রা বাড়ছে। এই সরকারের জন্য রাজ্যের কৃষকরা কৃষি ভাতা পাচ্ছেন না। তবে আমরা ক্ষমতায় আসার পর বিধানসভায় প্রথম যে সভা হবে ওই দিনই বাংলার ৭৪ লক্ষ কৃষককে ১৮ হাজার করে ভাতা দেওয়া হবে। ক্ষমতায় এলে আয়ুষ্মান ভারতে যুক্ত করা হবে মানুষকে”।