শুক্রবার ফের ধাক্কা খেল মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় সরকার। মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দিলেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায়। আর তারপরই তাঁর সম্পর্কে সুর পাল্টে গেল তৃণমূল কংগ্রেসের। তাঁর পদত্যাগে ভালই হয়েছে, নইলে দলকে তাঁর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হল বলে মন্তব্য করেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ সৌগত রায়। এরপরও ডোমজুড়ে তৃণমূল কংগ্রেস অন্তত ১০ হাজার ভোটে জয়ী হবে বলে দাবি করলেন কুনাল ঘোষ।

দিন কয়েক আগে ফেসবুক লাইভ করে দল ও সরকারের বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ তুলেছিলেন রাজীব বন্দোপাধ্যায়। তারপরও তাঁর সম্পর্কে সুর নরমই রেখেছিল তৃণমূল শীর্ষ। নেতৃত্ব। সৌগত রায় বলেছিলেন, রাজীবের বেশ কয়েকটি অভিযোগের সঙ্গে তিনি একমত। দলকে পথ দেখাতে চেয়েছেন রাজীব, তিনি বেসুরো নন বলে জানিয়েছিলেন বিশিষ্ট তৃণমূল নেতা।

আরও পড়ুন - নিরাপদেই রয়েছে Covishield, আগুনে কতটা ক্ষতিগ্রস্ত সিরাম ইনস্টিটিউট

আরও পড়ুন - আজ প্রথমবার রাফালের ককপিটে CDS রাওয়াত, ফরাসীদের সঙ্গে মরুভূমির আকাশে ওয়ারগেম

আরো পড়ুন - নেতাজিকে ভারতরত্ন দেওয়ার দাবি, ১২৫তম জন্মবার্ষিকীর আগে বিতর্ক তৈরি করলেন বিজেপি সাংসদ

এদিন মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর সৌগত রায় জানান, দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় দুবার তাঁর সঙ্গে বসেছিলেন, তাঁর মান ভঞ্জনের জন্য। কিন্তু, তাতেও তাঁর মানভঞ্জন হয়নি। মন্ত্রিসভার সদস্য হয়েও তিনি এর আগে ৫টি বৈঠকে যোগ দেননি তিনি। তাই মন্ত্রিসভায় থেকেও তিনি কাজ করছিলেন না বলে অভিযোগ করেছেন সৌগত।

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন তৃণমূল নেতা কুনাল ঘোষও। কুনাল জানান, দলের একাংশের ষড়যন্ত্রে তাঁকে জেলে যেতে হয়েছিল। তারপরেও তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রয়েছেন। তিনি প্রেসিডেন্সি জেলে থাকার সময়, কারামন্ত্রী হিসাবে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। মন্ত্রিত্ব পেয়েও, ক্ষমতা পেয়েও তাঁর ক্ষোভ আসছে কোথা থেকে, এই প্রশ্নই তুলে দিয়েছেন কুনাল। ভোটের আগে মানুষের কাজ করতে পারছেন না, এই বিবেক জাগ্রত হওয়ার কথা মানুষ বিশ্বাস করবে না বলে দাবি করেছেন তিনি।