পশু, পাখিদের ছবি তুলতে ভালবাসতেন। আর সেই প্রকৃতির কোলেই প্রাণ গেল এক যুবকের। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনা ঘটেছে ঝাড়গ্রাম জেলার সাঁকরাইল থানার আতাডিহা গ্রামে। চার বন্ধুর সঙ্গে চিল্কিগড়ে ঘুরতে এসেছিলেন আশীষ শেঠ। মূল উদ্দেশ্যে ছিল পাখি- সহ প্রকৃতির ছবি ক্যামেরাবন্দি করা। বাড়ি ফেরার পথে সাঁকরাইলে আত্মীয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন তিনি। আর ঠিক তখনই খবর পান, গ্রামে একদল হাতি এসেছে।

হাতির খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে চলে যান আশিস এবং তাঁর সঙ্গীরা। ছবি তোলার নেশায় হাতির পালের কাছাকাছি চলে যান আশিস। ছবি তুলতে ব্যস্ত খেয়ালই করেননি যে তাঁর কাছে চলে এসেছে একটি বুনো হাতি। মুহূর্তে আশিসের উপরে হামলা চালায় হাতিটি। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর।  

আরও পড়ুন-লাখ টাকার মোবাইল ছিনতাই, বাঁচাতে গিয়ে ট্রেন থেকে পড়ে মৃত্যু তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর...

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, শুঁড়ে পেঁচিয়ে ওই যুবককে মাটিতে আছাড় মারে হাতিটি। তাঁর বাকি সঙ্গীরা কোনওক্রমে পালিয়ে রক্ষা পান।

আরও পড়ুন -বাড়তি সোনা জমিয়েছেন, মোদী সরকারের নয়া নীতিতে পড়বেন বিপদে...

হাওড়ার মৌরিগ্রামের বাসিন্দা আশিস অবসর সময়ে জীবজন্তুর ছবি তুলতে ভালবাসতেন। সুযোগ পেলেই ক্যামেরা নিয়ে বেরিয়ে পড়তেন তিনি। সপ্তাহান্তে ছবির নেশাতেই চিল্কিগড়ে গিয়েছিলেন বন্ধুদের সঙ্গে। সেখান থেকে সাঁকরাইলে মামাবাড়ি যাওয়ার পথেই বিপত্তি ঘটে।

সাঁকরাইল থানার ক্ষুদমরাই এলাকায় হঠাৎই একপাল হাতি ঢুকে পড়ে। সেই হাতির পালকে তাড়ানোর জন্য গ্রামের সমস্ত লোক জমায়েত হয়েছিল। আর তখনই একটি গাড়ি করে ওই যুবকরাও সেখানে এসে উপস্থিত হন। গ্রামবাসীরা হাতি তাড়াতে পারদর্শী, কিন্তু হাতিদের আচরণ সম্পর্কে সেভাবে অভিজ্ঞতা ছিল না আশিস এবং তাঁর সঙ্গীদের। গ্রামবাসীদের সঙ্গে তাঁরাও হাতির কাছাকাছি চলে গিয়েছিলেন।  হাতির পাল তাড়া করলে বাকিরা পালালেও আশিস বেরিয়ে আসার সুযোগ পাননি। সাঁকরাইল থানার পুলিশ জানিয়েছে,চারজনের মধ্যে তিনজন সুস্থ রয়েছেন। প্রকৃতির কোলেই হারিয়ে গেলেন প্রকৃতিপ্রেমী আশিস।