হোক না একদিনের। লকডাউনের বাজারে বিনামূল্যে সবজি তো পাওয়া গেল! বাজার বসল বীরভূমের রামপুরহাটে। ব্যাগ ভর্তি আনাজ নিয়ে বাড়ি ফিরলেন একশোরও বেশি মানুষ।

আরও পড়ুন: হাল খাতা না করলেও মিষ্টি এল বাড়ি, বিনামূল্য়ের রসগোল্লায় ডুব ৩০০ বসিরহাটবাসীর

সাক্ষাৎ 'মৃত্যুদূত' হয়ে হাজির করোনা ভাইরাস। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে ঘরবন্দি থাকা ছাড়া কোনও উপায় নেই। পরিস্থিতি কবে যে স্বাভাবিক হবে! লকডাউনের বাংলার সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই। কাজকর্ম বন্ধ, রোজগার নেই। আর্থিক সংকট চরমে। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে, বাজার থেকে আনাজ কেনার মতো সামর্থ্যও নেই অনেকেই। 

আরও পড়ুন: লকডাউনে শুনসান আদালত চত্বর, আহত হনুমানের ত্রাতা পুলিশকর্মীরা

আরও পড়ুন: মাস্ক না পরলে দেওয়া হবে না মিষ্টি, পোস্টার দিয়ে জানিয়ে দিলেন এই মিষ্টি বিক্রেতা

রবিবার সকালে বাজার বসেছিল রামপুরহাট শহরের পাঁচমাথার মোড়ে। বাজারে আলু, পেঁয়াজ, কুমড়ো, বেগুন, ঝিঙে সবই ছিল। যাঁরা বাজারে এসেছিলেন, তাঁদের কুপন দেওয়া হচ্ছিল। শর্ত একটাই, মুখে মাস্ক পরতে হবে। এমন সুযোগ আর কেইবা হাতছাড়া করতে চায়! মুখে মাস্ক পরে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে 'বিনেপয়সার বাজার' থেকে সবজি নিলেন একশোর বেশি মানুষ।   এই পরিকল্পনা যাঁর মস্তিষ্কপ্রসূত, সেই আব্দুল রেকিব জানালেন, যে পরিমাণ সবজি দেওয়া হয়েছে, তাতে পরিরারে যদি তিনজন সদস্য থাকে, তাহলে অন্তত চারদিন চলে যাবে। আব্দুল নিজেও পেশায় ব্যবসায়ী। রামপুরহাটে মানবিক স্টল নামে একটি দোকান চালান তিনি।