দুধ নষ্ট না করে গ্রামের দুঃস্থদের মিষ্টি খাওয়াতে এগিয়ে আসলেন মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীরা। বসিরহাটের বিখ্যাত কাঁচাগোল্লা রসগোল্লা অন্যান্য মিষ্টান্ন গ্রামের ৬০ টি দুঃস্থ পরিবারের হাতে প্রায় ৩০০ জনের হাতে মিষ্টির প্যাকেট তুলে দিলেন। এছাড়াও তুলে দেওয়া হল - ছানা পাশাপাশি চাল, ডাল, সরিষার তেল।


আরও পড়ুন, সোমবার থেকে বন্ধ গড়িয়া স্টেশন বাজার, রাজপুর-সোনারপুরে চলছে পুলিশের নাকা চেকিং

ব্যবসায়ীদের দুধের জোগান হওয়া সত্ত্বেও দিতে না পারায়, দুধ নষ্ট হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় তার মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানি গুলো যেমন দুধ দিতে পারছে না। তেমনি মিষ্টির দোকানদার সময় সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটে পর্যন্ত নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়া। পর্যাপ্ত পরিমাণে মিষ্টি করতে পারছে না। করলেও সেটা বিক্রি করতে পারছেনা । সিদ্ধান্ত নিয়েছে যতদিন লকডাউন চলবে দুধ নষ্ট না করে ছানা তৈরি করে বিভিন্ন  মিষ্টি করে গ্রামের দুঃস্থদের খাওয়াবেন। উল্লেখ্য়, তবে এসবের সঙ্গে গ্রামবাসীদের মাক্স ও স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে করোনা সচেতনতা বার্তা দেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন, করোনার কোপ এবার বাইপাসের ধারের বস্তিতে, ১৫০০০ মানুষকে পাঠানো হল কোয়ারেনন্টিনে

বসিরহাট খোলাপোতা গ্রাম পঞ্চায়েতের রঘুনাথপুরের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী রাহুল বৈদ্য উদ্যোগ নেন। এই সময়  দুঃস্থ সাধারণ ও প্রসূতি মায়েদের জন্য প্রোটিন খাবার দরকার। তাই গ্রামের ৩০০ জন মানুষের কাছে মিষ্টির প্যাকেট সঙ্গে ছানা তুলে দেন।  এই ব্যবসা স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা দিয়ে যাবেন।  মিষ্টি পেয়ে খুশি শ্রীকৃষ্টপুর গ্রামবাসীরা এই ধরনের উদ্যোগকে রীতিমতো সাধুবাদ জানিয়েছে বসিরহাটের মানুষ।

 

  'হটস্পট' এলাকা থেকে আসায় প্রসুতিকে ফিরিয়ে দিল এনআরএস, চরম যন্ত্রনা নিয়ে ঘরেই প্রসব-মৃত সদ্যোজাত

করোনার কোপ এবার সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোরে, বেলেঘাটা আইডিতে ভর্তি শীর্ষ স্বাস্থ্যকর্তা

 করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্য়ু ক্যানসার রোগীর,আতঙ্ক ছড়াল রাজারহাটের হাসপাতালে