নারদ স্টিং অপারেশন মামলায় এবার নয়া মোড়। সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর,তৃণমূলের নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে লোকসভার স্পিকারের কাছে অনুমতি চেয়েছে সিবিআই। ওম বিড়লার অনুমতি পেলে ফের নারদকাণ্ড নিয়ে সরগরম হতে চলেছে রাজ্য় রাজনীতি।

সূত্রের খবর, আগামী সপ্তাহে নারদকাণ্ডে অভিযুক্ত ১১ জন সাংসদ-বিধায়ককে জিজ্ঞাসাবাদ করবে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এই মর্মে তাঁদের উদ্দেশে ইতিমধ্য়েই নোটিস পাঠিয়েছে সিবিআই। বুধবারই দিল্লিতে সিবিআই দফতরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে। সারদা মামলা নিয়েই মুকুলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বলে খবর। সিবিআইয়ের একটি সূত্র জানাচ্ছে, মূলত সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে টাকা পয়সার লেনদেন নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে মুকুলকে। সারদার টাকায় মিডিয়া ব্য়বসা কীভাবে চলত তাও জানতে চাওয়া হয়েছে তাঁর কাছে। এমনকী একটি ছবি প্রদর্শনীর বিষয়েও জিজ্ঞেস করেছে সিবিআইয়ের অফিসাররা। এ কথা স্বীকার করলেও সিবিআইয়ের ম্য়ারাথন জেরা নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন মুকুল। তবে সারদা নিয়ে প্রশ্ন করা হলেও নারদা মামলায় মুকুলকে ডাকা হয়নি বলে খবর। 

আরও পড়ুন :দিলীপের বাড়িতে দেবশ্রী! যোগদান ঘিরে জল্পনা

আরও পড়ুন :রাণুর নকল করে বিতর্কে অভিনেতা, থানায় অভিযোগ হতেই চাইলেন ক্ষমা

গত কয়েক দিন ধরেই নারদকাণ্ডের তদন্তে গতি এনেছে সিবিআই। ইতিমধ্যেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে অথবা নোটিশ পাঠানো হয়েছে টিএমসির একাধিক প্রভাবশালীকে। সিবিআই সূত্রে খবর, ভিডিও ফুটেজে যাঁদের কণ্ঠস্বর পাওয়া গিয়েছে , তাঁদেরকে জেরা করবে সিবিআই। কিন্তু মুকুলের নাম কেন বাদ পড়ল, সেটা নিয়েই উঠছে প্রশ্ন। ম্যাথিউর পেশ করা ভিডিওয় মুকুলকে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু নিজে হাতে টাকা নিতে দেখা যায়নি মুকুলকে।

সিবিআইয়ের কাছে ম্যাথিউর দাবি, অপারেশনের টাকার জোগান দেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ কে ডি সিং। এমনকী কার বিরুদ্ধে অপারেশন করতে হবে, সে সবও স্থির করে দেন তিনি। কে ডি অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ইতিমধ্যে কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নোটিশ পাঠিয়েছে সিবিআই। সিবিআই দফতরে ডাক পড়েছে তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দারেরও। একই তালিকায় সাংসদ কাকলি ঘোষদস্তিদার, সাংসদ সৌগত রায়, শুভেন্দু অধিকারির নাম রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। 

আরও পড়ুন :বাগড়া দিল না রাজ্য়, ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্বস্তিতে মুকুল

আরও পড়ুন :মুখে বলার দিন শেষ, টাকা ফেরাতে কাটমানি পোস্টার পড়ল গ্রামে