মিঠু সাহা, শিলিগুড়ি: মাতৃস্নেহের কাছ হার মানল করোনা। সকলের নজর এড়িয়ে কোভিড হাসপাতালে পালিয়ে গেলেন করোনা আক্রান্ত মহিলা। ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে শিলিগুড়িতে। হাসপাতালের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মুখে কুলুপ এঁটেছেন দার্জিলিং জেলার মুখ্য় স্বাস্থ্য আধিকারিক।

আরও পড়ুন: 'করোনা এক্সপ্রেস' নিয়ে নীরবতা ভাঙলেন মমতা, বললেন ওটা 'জনতার কথা'

ঘটনার সূত্রপাত দিন কয়েক আগে। শিলিগুড়ি লাগোয়া নকশালবাড়ির অটল চা বাগানের বাসিন্দা এক মহিলার করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তাঁকে ভর্তি করা হয় শিলিগুড়ির কোভিড হাসপাতালে। জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্তের সঙ্গে হাসপাতালে ছিলেন তাঁর সদ্যোজাত সন্তানও। দিন দুয়েক পর অবশ্য শিশুটিকে ছেড়ে দেওয়া হয়। সোমবার সকালে আচমকাই কোভিড হাসপাতাল থেকে উধাও হয়ে যান করোনা আক্রান্ত ওই মহিলাও। কোথায় গিয়েছিলেন? ফেরার পর যখন ওই মহিলাকে জেরা করতে শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, তখন তিনি জানান, সন্তানকে দেখতে বাড়িতে গিয়েছিলেন!

দিনে দুপুরে কোভিড হাসপাতাল থেকে একজন রোগী পালিয়ে গেলেন। অথচ কারও নজরে পড়ল না কেন? এই ঘটনা নিয়ে মুখ খুলতে চাননি দার্জিলিং জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রলয় আচার্য। আর উত্তরবঙ্গে করোনা মোকাবিলায় দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক সুশান্ত কুমার রায়ের প্রতিক্রিয়া, 'ঘটনা সম্পর্কে খোঁজ খবর নেওয়া হবে। হাসপাতালে নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।'

আরও পড়ুন: শনিবার খুলছে দক্ষিণেশ্বর মন্দির, থার্মাল চেকিং-এর পর মিলবে প্রবেশের অনুমতি

উল্লেখ্য, যতদিন যাচ্ছে, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে উত্তরবঙ্গে। রেহাই পাচ্ছেন না চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরাও। মে মাসের গোড়ার দিকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজের এক চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞদের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। পরিস্থিতি এমনই যে, করোনা যোদ্ধাদের জন্য জলপাইগুড়িতে একটি আলাদা কোভিড হাসপাতালে তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।