বুদ্ধদেব পাত্র, পুরুলিয়া:  'আদিবাসীদের প্রতি যদি এতই দরদ, তাহলে হাথরাসকাণ্ডের পর নির্যাতিতার বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হল না কেন?' কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-কে কটাক্ষ করতে ছাড়ল না বামেরাও। সিপিএম-এর রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, 'খেতে নয়, আদিবাসীদের বাড়িতে ফটোশুট করতে গিয়েছেন।'

আরও পড়ুন: 'অমিত শাহের ভবিষ্যৎবাণী মিথ্যা প্রমাণিত হবে', পরিসংখ্যান-সহ প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি তৃণমূলের

করোনা আতঙ্কে উলটপালট হয়ে গিয়েছে জীবন। লকডাউনের জেরে কাজ হারিয়ে কার্যত পথ বসেছেন বহু মানুষ। পুরুলিয়া শহরের নডিহার কৃষি ভবনে দুঃস্থ মানুষদের জন্য শ্রমজীবী ক্যান্টিন চালাচ্ছেন বাম ছাত্র সংগঠন এসএফআই-এর সদস্যরা।  শুক্রবার সিপিএম-এর রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র নি'জে সেই ক্যান্টিনটি পরিদর্শন করতে যান। পথ চলতি দুঃস্থ মানুষদের হাতে খাবারও তুলে দেন তিনি।

এদিকে আবার বিধানসভা ভোটের মুখে  দু'দিনে সফরে রাজ্যে এসেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দলীয় কর্মসূচি ফাঁকে বাঁকুড়ায় এক আদিবাসীর বাড়িতে, আর কলকাতা মতুয়া বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজ সেরেছেন তিনি। একসঙ্গে চলার বার্তা দিয়েছেন বামপন্থীদের। সেই প্রসঙ্গ সূর্য়কান্ত মিশ্র বলেন, 'অমিত শাহের কথা কে শোনে! ওর কথা শুনিনা। দিনরাত উল্টো পাল্টা কথা বলেন।' আদিবাসীদের বাড়িতে খাওয়া নিয়ে তাঁর সোজাসাপ্টা মন্তব্য, 'ওটা ভড়ং। আগের ভোটের সময়ে উত্তরবঙ্গে এক আদিবাসীর বাড়িতে খেয়েছিলেন। তারপর কী হয়েছে!' আগামী বিধানসভা ভোটে বাংলায় দুশোটিরও বেশি আসনের টার্গেট দিয়ে গিয়েছেন অমিত শাহ। সূর্যকান্ত মিশ্রের প্রতিক্রিয়া, 'ওরা টার্গেট করুক। বিধানসভা ভোটের মানুষ ওঁদের টার্গেট করে লক্ষ্যভেদ করবেন।'

আরও পড়ুন: প্রয়াত হলেন প্রাক্তন বিধায়ক এবং সাংসদ আবু আয়েশ মণ্ডল

স্রেফ অমিত শাহ-কেই নয়, শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও একহাত নেন সিপিএম-এর রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। বলেন, 'উনি কিছুই করছেন না। সাড়ে ন'বছর ধরে মানুষকে ভাঁওতা দিয়ে যাচ্ছেন। পাহাড়ে দিয়ে সাতটা বোর্ড তৈরি করে দিয়ে এলেন। এভাবে মানুষকে ভাগ করে কতদূর যাবেন! তৃণমূল বিজেপি সব একই।'