তেলেনিপাড়ার ঘটনায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্য়ায় এবং ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং এর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করল পুলিশ। ১৫৩/এ,৪৬৮,৪৬৯,৫০৫/(২),৫০৬,১২০/বি,৪১ ধারায় মামলা রুজু করেছে চন্দননগর কমিশনারেটের পুলিশ।

মুখ্যমন্ত্রীর নামে কুরুচিকর মন্তব্য, বিজেপি কর্মীর বাড়িতে গিয়ে 'আক্রান্ত পুলিশ'

ভদ্রেশ্বর তেলিনিপাড়ার ঘটনা নিয়ে হুগলি জেলা শাসক দপ্তরের সামনে ধর্নায় বসেন লকেট ও অর্জুন। পরবর্তীকালে তেলিনিপাড়ায় যাওয়ার চেষ্টা করেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। তাদের রাস্তায় আটকে দেয় পুলিশ। এ বিষয়ে ফেসবুকে পোস্ট করেন লকেট। পরে এই নিয়ে অভিযোগও করেন সোশ্য়াল মিডিয়ায়। তার অভিযোগ,বার বার এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পুলিশ আধিকারিকের সঙ্গে দেখা করতে চান  তিনি।  একজন সাংসদকে এ বিষয়ে সময় দেওয়ার মতো সময় নেই পুলিশ আধিকারিকের।

সোমবার থেকে চলবে সব বাস, সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্য়ে সাতটা পর্যন্ত পরিষেবা.

আজ হুগলি জেলা বিজেপি অফিসে সাংবাদিক বৈঠক করে হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্য়ায় বলেন,তেলিনিপাড়ার ঘটনায় মাস্টারমাইন্ডকে ধরতে না পেরে কিছু নিরীহ মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছে।ধৃতদের সব রকম আইনি সাহায্য দেবে বিজেপি।বার বার সিপির সঙ্গে দেখা করতে চাইলেও দেখা করেননি সিপি হুমায়ূন কবির। তিনি বলেন,চন্দননগরের বিধায়ক এলো তার সঙ্গে মিটিং করলেন কিন্তু আমি দেখা করতে চাইলাম উনি দেখা করলেন না।আর এখন পুলিশ মিথ্যা মামলা দিচ্ছে।

রাজ্য়ের সাম্প্রতিক চিত্রপট বলছে, বিগত বেশকিছুদিন ধরে উত্তপ্ত হুগলির তেলেনিপাড়া। করোনা সন্দেহভাজনদের সঙ্গে বচসা থেকে গোষ্ঠী সংঘর্ষ শুরু হয়েছে সেখানে। বেগতিক  দেখে এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। কিছু জায়গায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।