ভয়াবহ এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি মিলবে কবে! করোনা সতর্কতায় এবার বিগ্রহে মাস্ক পরিয়ে কালীপুজো করলেন মৈত্র বাড়ির সদস্যরা। তাঁদের আশা, অভিনব এই পুজো দেখে মানুষ কিছুটা হলেও সাবধান হবেন। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে।

আরও পড়ুন: হাওড়ায় করোনায় আক্রান্ত আরপিএফ জওয়ান, ব্যারাক সিল করে দিল পুলিশ

রায়গঞ্জ শহরের তুলসীতলা এলাকার সপরিবারের থাকেন প্রদ্যুৎ মৈত্র। প্রতি বছর বৈশাখ মাসে ধুমধাম করে বাড়িতে কালীপুজো করেন তিনি। কিন্তু এবার বাদ সেধেছে করোনা আতঙ্কে। লকডাউন চলছে রাজ্যে,  স্কুল-কলেজ-অফিস তো বটেই, বন্ধ হয়ে গিয়েছে মন্দির-মসজিদ-গির্জাও। কিন্তু তাই বলে মৈত্র বাড়ির কালীপুজোয় কিন্তু ছেদ পড়েনি। বরং বিপদের সময়ে মানুষকে সচেতন করতে অভিনব সিদ্ধান্ত নিলেন পরিবারের সদস্যরা। পুজোর আয়োজনে তেমন আড়ম্বর ছিল না ঠিকই, তবে কালী বিগ্রহে পরানো হয়েছিল মাস্ক! কেন? প্রদ্যুৎ মৈত্র বলেন, 'মাস্কের ব্যবহার, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই করোনা ভাইরাসকে হারানো সম্ভব। আমরা সাধারণ মানুষকে বোঝাতে চেয়েছি, মা তাঁর ভক্তদের বলছেন, দেখ আমিও মাস্ক পরেছি, তোরাও মাস্ক ব্যবহার কর।' কিন্তু সাধারণ মানুষের হুঁশ কি ফিরবে? তেমনই আশা করছেন মৈত্র বাড়ির সদস্যরা।

 

আরও পড়ুন: লকডাউনে বাড়ি না ছাড়ার শাস্তি, ভাড়াটিয়ার জল-বিদ্য়ুত বন্ধ করে দিল বাড়িওয়ালা

আরও পড়ুন: লকডাউনের বাজারে ভরসা গাছ, 'ওয়ার্ক ফ্রম ট্রি' করছেন বাঁকুড়ার যুবক

উল্লেখ্য, ওষুধ বা ভ্যাকসিন নেই, উপসর্গ অনুযায়ী চিকিৎসা করতে হয়। করোনা সংক্রমণ বাঁচতে সতর্ক হওয়া ছাড়া কোনও উপায় নেই। ভিড় বা জমায়েত বন্ধ করতে এ রাজ্যে লকডাউন জারি করেছে প্রশাসন। কিন্তু তাতে করোনা বাগে আনা যাচ্ছে কই! উল্টে লকডাউন ভেঙে রাস্তায় বেরিয়ে পড়ছেন অনেকেই। সকলেই যে মাস্ক ব্যবহার করছেন, এমনটা কিন্তু নয়। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।  যতদিন যাচ্ছে, পরিস্থিতিও ততই ঘোরালো হয়ে উঠছে।