মাস দেড়েক আগে বঙ্গোপসাগর থেকে এক ভারতীয় মৎস্যজীবীকে উদ্ধার করে প্রাণ বাঁচিয়েছিল একটি বাংলাদেশি জাহাজের নাবিকরা। কাকদ্বীপের বাসিন্দা রবীন্দ্রনাথ দাস নামে সেই মৎস্যজীবী সেদিন বাংলাদেশি জাহাজের নাবিকদের জন্যই অলৌকিক রক্ষা পেয়েছিলেন। সেই ঘটনারই যেন পুনরাবৃত্তি ঘটল বঙ্গোপসাগরে। মাছ ধরতে গিয়ে সমু্দ্রের জলে পড়ে ভেসে যাওয়া এক বাংলাদেশি কিশোরকে ,উদ্ধার করল একটি ভারতীয় ট্রলার। আপাতত সুস্থই আছে ওই কিশোর। তাকে ইতিমধ্যেই পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। 

দিন চারেক আগে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে প্রবল জলচ্ছ্বাসের মধ্যে পড়েছিল বাংলাদেশি ট্রলার ইমরান। আর সেই ট্রলার থেকে বেসামাল হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়ে গিয়েছিল ট্রলার মালিকের ছেলে ইমরান খান। কাকদ্বীপের রবীন্দ্রনাথ দাস সমু্দ্রের জলে প্রায় চার দিন ভেসেছিলেন। আর ইমরান নামে ওই কিশোর দুই দিন ও এক রাত জলে ভেসে থাকার পর শুক্রবার তাকে ভারতীয় মৎস্যজীবীরা উদ্ধার করেন। 

শনিবার তাকে দক্ষিণ ২৪ পরগণার রায়দিঘি জেটি ঘাটে আনা হয় ওই কিশোরকে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর কিশোরকে রায়দিঘি থানার হাতে তুলে দেওয়া হয় মৎস্যজীবীদের তরফে। 

শুক্রবার এফ বি পঞ্চানন নামে একটি ভারতীয়  ট্রলার মাছ ধরার সময় বঙ্গোপসাগরের জলে ওই কিশোরকে ভাসতে দেখে তাকে উদ্ধার করে। বাংলাদেশের পাথরঘাটা থানার বড়গুনা চর দেওয়ানি পাড়ায় বাড়ি ওই কিশোরের। উদ্ধারের পরে ওই কিশোরের প্রাথমিক শুশ্রুষা করেন মৎস্যজীবীরা। তার পরেই গোটা ঘটনা খুলে বলতে পারে সে। 

আরও পড়ুন- বাংলাদেশের জাহাজ কীভাবে উদ্ধার করল কাকদ্বীপের মৎস্যজীবীকে, দেখুন সেই রোমহর্ষক ভিডিও

আরও পড়ুন- পাঁচ দিন সমু্দ্রে ভেসে উদ্ধার স্বামী, বিশ্বাসই হচ্ছে না বন্দনা দাসের

দু' দিন আগেও মহম্মদ নিজামুদ্দিন নামে এক বাংলাদেশি মৎস্যজীবীকে বঙ্গোপসাগর থেকে উদ্ধার করেছিলেন রায়দিঘির মৎস্যজীবীরা। এই কিশোর যাতে সুস্থ হয়ে নিজের বাড়িতে ফিরে যেতে পারে, সেটাই চাইছেন রায়দীঘির এই মৎস্যজীবীরা। 

বাংলাদেশি ওই কিশোর জানিয়েছে, দিন কয়েক আগে নিজেদের ট্রলারে করে মোট বারোজন সদস্য মিলে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে বেড়িয়েছিল তারা। এর পরই ঘটে দুর্ঘটনা। টানা দু' দিন ও এক রাত বঙ্গোপসাগরের জলে নিজের উপস্থিত বুদ্ধির জোরে ভাসতে থাকে সে। অবশেষে শুক্রবার ভারতীয় মৎস্যজীবীরা বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে তাকে দেখে উদ্ধার করেন।