Asianet News BanglaAsianet News Bangla

Subrata Mukherjee: সোমবার সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের স্মৃতিচারণার আয়োজন বিধানসভায়, মমতার থাকার সম্ভাবনা

সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের এই স্মৃতিচারণায় সোমবার উপস্থিত থাকবেন সব দলের বিধায়করা। এমনকী বিজেপি বিধায়কদেরও অনেকে উপস্থিত থাকবেন বিধানসভায়। 

Mamata is likely to be present in the assembly on Monday to commemorate Subrata Mukherjee bmm
Author
Kolkata, First Published Nov 7, 2021, 7:57 AM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

প্রথম বিধানসভায় (Assembly) পা রেখেছিলেন ১৯৭১ সালে। জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত বিধায়ক (MLA) ছিলেন তিনি। দীর্ঘ পাঁচ দশক ধরে পরিষদীয় রাজনীতিতে কাটিয়েছেন। তারপর পাড়ি দেন না ফেরার দেশে। আর তাঁর প্রয়াণে শোকেরছায়া বঙ্গ রাজনীতিতে (Bengal politics)। সোমবারই বিধানসভায় প্রয়াত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের (Subrata Mukherjee) স্মৃতিচারণা হবে বিধানসভায়। আগামীকাল প্রথমে শোকপ্রস্তাব পাঠ করবেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় (Biman Banerjee)। তারপরই তাঁর স্মৃতিচারণা করা হবে।

সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের এই স্মৃতিচারণায় সোমবার উপস্থিত থাকবেন সব দলের বিধায়করা। এমনকী বিজেপি বিধায়কদেরও (BJP MLA) অনেকে উপস্থিত থাকবেন বিধানসভায়। এর আগে অবশ্য বঙ্গ বিজেপির তরফ সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, ১৩ নভেম্বরের আগে বিধানসভার কোনও অধিবেশনে তাদের দলের কোনও বিধায়ক যোগ দেবেন না। কিন্তু, সুব্রতর প্রয়াণের পর পরিস্থিতি অনেকটাই বদলে গিয়েছে। নিজেদের সিদ্ধান্তে বদল এনেছে তারা। জানা গিয়েছে, সুব্রতর স্মৃতিচারণায় উপস্থিত থাকবেন একাধিক বিজেপি বিধায়ক। এছাড়া তৃণমূলের (TMC) সব বিধায়কও থাকবেন। পাশাপাশি সোমবার বিধানসভায় থাকতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও (Mamata Banerjee)।

আরও পড়ুন- 'গেঞ্জি-জাঙ্গিয়া-টুইট ছাড়া ভাঁড়সম্রাট তথাগতর আছেটা কী', পাল্টা টুইটে আক্রমণ কুণালের 

উল্লেখ্য, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে একটিও আসন পায়নি বাম ও কংগ্রেস। ফলে স্বাধীনতার পর এই প্রথমবার বিধানসভা বাম-কংগ্রেস শূন্য হয়ে গিয়েছে। শুধুমাত্র বিজেপি ও তৃণমূলের বিধায়করাই রয়েছেন সেখানে। কিন্তু, বিধানসভায় বাম ও কংগ্রেস না থাকায় মোটেই মন ভালো ছিল না সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের। ভোটের ফল প্রকাশের পর তিনি জানিয়েছিলেন, "বাম ও কংগ্রেস না থাকলে এই বিধানসভায় ভালো লাগে না। আমরা এসে থেকে ওদের দেখেছি। ওরা খারাপ ভালো যাই হোক, বিধানসভার সব নিয়ম ওরা জানে। তর্ক–বিতর্কে ওদের সঙ্গে অংশ নেওয়া যায়। ওঁদের সঙ্গে মতের মিল না হলেও ওঁরা যুক্তিবাদী ছিলেন। বিজেপির থেকে ১২০ গুন ভালো বাম-কংগ্রেস। বিজেপির যুক্তির কোনও মাথা মুণ্ডু নেই। আমার পরিষদীয় রাজনীতির প্রথম দিন থেকেই ওঁদের বিধানসভায় দেখেছি। না থাকায় অস্বস্তি হচ্ছে। ৫০ বছর ধরে ওঁদেরই তো দেখে আসছি। এবার শূন্য।" এমনকী, বাম-কংগ্রেসকে বিধানসভায় মিস করছিলেন বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। তবে সোমবার তাঁর স্মৃতিচারণা বাম ও কংগ্রেসের কাউকেই দেখতে পাওয়া যাবে না। 

আরও পড়ুন- আজ সকাল থেকেই মিষ্টির দোকানে ভিড় কলকাতায়, জানুন কতক্ষণ থাকছে ভ্রাতৃ দ্বিতীয়া

আরও পড়ুন- "এত লজ্জা না পেয়ে দল ছেড়ে দিন", ‘ধৈর্যের বাঁধ’ ভেঙে তথাগতর বিরুদ্ধে মন্তব্য দিলীপের

২৪ অক্টোবর শারীরিক পরীক্ষার জন্য এসএসকেএম হাসপাতালে গিয়েছিলেন সুব্রত। পরীক্ষা চলাকালীনই তাঁর শ্বাসকষ্ট শুরু হয়েছিল। এরপর কোনও ঝুঁকি না নিয়ে তাঁকে উডবার্নের আইসিসিউ-তে ভর্তি করেছিলেন চিকিৎসকরা। পরে কার্ডিওলজি আইসিইউ-তে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়। সুব্রতকে ‘নন ইনভেসিভ ভেন্টিলেশন’ বা বাইপ্যাপ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। দেওয়া হয়েছিল অক্সিজেনও। পরে তাঁর বুকেও সংক্রমণ ধরা পড়ে। তবে কিছুটা সুস্থ হওয়ায় গত সপ্তাহে বাইপ্যাপ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়েছিল। এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন সোমবার সুব্রতর অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টিও করা হয়। দুটি স্টেন্ট বসানো হয়েছিল। তারপর ঠিকই ছিলেন তিনি।  কিন্তু, ৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় আচমকাই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। ওই দিন সন্ধ্যায় তিনি স্টেন্ট থ্রম্বোসিসে আক্রান্ত হন বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর। তারপর রাত ৯টা ২২ মিনিটে সেখানেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। এরপর ৫ নভেম্বর কেওড়াতলা মহাশ্মশানে গান স্যালুটে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios