এক থেকে বেড়ে  মৃতের সংখ্য়া দাঁড়াল দুই। জলঙ্গী গুলিবর্ষণ কাণ্ডে জট পাকাচ্ছে মৃত্যু রহস্য। ঘটনায় শাসক দলের নাম জড়াতেই ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছে টিম তৃণমূল।
 

জাতীয় সঙ্গীতের তত্ত্ব ওড়াল প্যান্টালুনস, সাসপেন্ডের পেছনে শৃঙ্খলাভঙ্গ, দাবি কর্তৃপক্ষের
এদিন মুর্শিদাবাদের তৃণমূল সাংসদ তথা জেলা তৃণমূল সভাপতি আবু তাহের খান বলেন, " যারা দলের নেতৃত্ব দেন তাদের নাম তো উঠে আসবেই। আমাদের সর্বোচ্চ দলীয় নেতৃত্ব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই তো এনআরসি, সিএএ-র বিরুদ্ধে প্রতিদিন কলকাতার রাজপথে  মিছিল করছেন। ফলে কেউ যদি এনআরসির বিরুদ্ধে আন্দোলন করে তাকে তো আমরা স্বাগতই জানাব। তাই তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই ঘটনা ঘটানোর কোনও প্রশ্ন ওঠে না। আর আমাদের দলে এমন কোনও গাইডলাইন নেই যাতে এই ধরনের কোনও আন্দোলন হলে স্থানীয় নেতৃত্ব ঝাঁপিয়ে পড়বে। তাই এই ঘটনায় দলীয় নেতৃত্ব কোনওভাবেই জড়িত নেই, জড়িত থাকতে পারে না। তারপরেও যদি অভিযোগ ওঠে, পুলিশ পুলিশের তদন্ত করতে পারে। তবে দলীয় স্তরে আলাদা করে আমাদের তদন্ত করার কিছু নেই।" 

পার্ক সার্কাসের সার্কাস কতদিন, সিএএ প্রতিবাদকারীদের খোঁচা দিলীপের

এদিকে  জলঙ্গী থানার সাহেবনগর গ্রামের  ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রামবাসীদের বক্তব্য,সাধারণ মানুষকে কেন পুলিস গ্রেফতার করল? ধৃত ব্যক্তিদের ছাড়ানো ও অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে পথে নামল গ্রামের সাধারণ মানুষ ও মহিলারা। বৃহস্পতিবার স্থানীয় গ্রামবাসীরা মৃতদেহ কবর না দিয়ে, সাগরপাড়া- রানিনগর রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায়। তাদের  দাবি, ঘটনায় অভিযুক্ত তহিরউদ্দিন মন্ডল ও মিল্টন মন্ডলকে গ্রামবাসীদের হাতে তুলে দিতে হবে। যতক্ষণ না পুলিস অভিযুক্ত ব্যাক্তিদের গ্রামবাসীদের হাতে তুলে দিচ্ছে, ততক্ষণ তাদের বিক্ষোভ চলবে বলে। 

তৃণমূলে প্রশান্ত কিশোর, কী বললেন পার্থ

পাল্টা এই ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া দেয় গেরুয়া শিবির। মুর্শিদাবাদ জেলা বিজেপির সভাপতি গৌরীশঙ্কর ঘোষ বলেন," জলঙ্গীর বিক্ষোভ আন্দোলন ও রাজনৈতিকভাবে হচ্ছিল। সেখানে তৃণমূল তাদের কর্তৃত্ব ফলাতে গিয়ে এক মসজিদের ইমাম,সবজি বিক্রেতা ও এক কিশোরকে গুলি করে হত্যা করেছে। দোষীদের কঠোর শাস্তি হওয়া প্রয়োজন"। পাশাপাশি এই ঘটনায় অভিযুক্ত জলঙ্গীর তৃণমূল সভাপতি তাহির উদ্দিন মন্ডলের ভাইকে ঘটনার পরে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীরা ধরে বেধড়ক গণধোলাই দেয়।তাকেও গুরুতর অবস্থায় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলেই খবর পাওয়া গেছে। 

দৃষ্টি ফেরানোর চক্করে খোয়াতে হল চোখ, ছানি অপারেশনে বিপাকে বৃদ্ধা

 প্রসঙ্গত, বুধবার স্থানীয় একটি অরাজনৈতিক সংগঠনের ডাকে সিএএ-র প্রতিবাদে রণক্ষেত্রের চেহারা  নেয় জলঙ্গী থানার সাহেবনগর এলাকা। দফায় দফায় চলা এলোপাথাড়ি গুলি বোমাবাজিতে  মৃত্যু হয় প্রবীণ , কিশোর সহ ২ বিক্ষোভকারীর। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত একাধিক।মৃতদের নাম সানারুল বিশ্বাস (৬২) ও সালাউদ্দিন শেখ (১৭)।ঘটনায় অভিযোগের তির উঠেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের দিকে। যদিও সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল। ঘটনার খবর পেয়েই এলাকায় ছুটে আসেন খোদ ডিআইজি মুর্শিদাবাদের  রেঞ্জ  মুকেশ  কুমার, এসপি মুর্শিদাবাদ অজিত সিং যাদব সহ বিশাল পুলিশবাহিনী।