গরিবের খাবার চলে যাচ্ছে সরাসরি গবাদি পশুর মুখে। রেশন দুর্নীতির জেরে রাতের অন্ধকারে ঘটছে এই ঘটনা। শনিবার হাতেনাতে যার প্রমাণ মিলল বজবজে।
 
অভিযোগ আসছিল বহুদিন ধরে। প্রমাণের অভাবে যার তল পাচ্ছিলেন না এলাকার জনপ্রতিনিধিরা। অবশেষে রাতের অন্ধকারে রেশন দুর্নীতির হদিশ মিলল। যার প্রত্যক্ষ সাক্ষী থাকলেন বজবজের ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মিঠুন ঠিকাদার। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন,শনিবার রাতে এক ভ্য়ান চালককে দেখে সন্দেহ হয় স্থানীয়দের। বস্তার গায়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকার খাদ্য সরবরাহ বিভাগ লেখা দেখে চেপে ধরেন স্থানীয়রা। পরে গ্রামবাসীদের প্রশ্নের উত্তরে সে জানায়, মেয়াদ উত্তীর্ণ আটা নিয়ে যাচ্ছেন তিনি। কিন্তু কোন রেশন দোকান থেকে এই আটা আনা হয়েছে তা নিয়ে মুখ খোলেননি তিনি।

প্রাণের বনগাঁতেই অপমানিত বিভূতিভূষণ, জন্মদিনে চটুল নাচ, দেখুন ভিডিও

চলছে অস্ত্রোপচার, ডাক্তারদের গান শোনাচ্ছে ছ' বছরের খুদে, দেখুন ভাইরাল ভিডিও

এলাকাবাসীর অভিযোগ,বহু ক্ষেত্রেই আটা নেই বলে গ্রাহককে ফিরিয়ে দেন রেশন দোকানিরা। পরে গরিবের সেই আটা মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেই তা বিক্রি করা হয় অন্যত্র। মূলত, গবাদি পশুর খাবার হিসাবেই ব্য়বহার করা হয় সেই আটা।  এর পিছনে রেশন দোকানিদের দুর্নীতি দেখছেন স্থানীয়রা।  ঘটনাটি ঘটেছে, দক্ষিণ ২৪ পরগনার বজবজ থানার চিত্তিগঞ্জে । এ বিষয়ে স্থানীয় কাউন্সিলার  মিঠুন ঠিকাদার বলেন, আমার কাছে বেশ কয়েকবার রেশন দুর্নীতির খবর এসেছিল। রেশন দোকানের আটা ভ্যানে করে অন্যত্র চলে যাচ্ছে,এরকম অভিযোগ প্রায়ই আসছিল। অবশেষে হাতেনাতে সেই দুর্নীতি ধরতে পেরেছি আমরা। কাউন্সিলর বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি খাদ্যসাথী প্রকল্প করেছেন গরিব মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য। কিন্তু বেশকিছু স্বার্থান্বেষী মানুষ সেই সকল গরিব ও সাধারণ  মানুষের মুখের গ্রাস কেড়ে নিচ্ছে।  আমি বজবজ থানায় ফোন করেছি । পাশাপাশি পুরো বিষয়টি আমার উর্ধবতন কর্তৃপক্ষের কাছে জানাবো। 

৭০ ছুঁয়ে 'ক্যারাটে কুইন',বারাসাতের মুক্তিদেবী আজ 'সামুরাই ঠাকুমা'

বাংলার সবথেকে বিষধর সাপ, মুর্শিদাবাদে ধরা পড়ল কালাচ