করোনা উদ্বেগের মধ্যেই সুখবর। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন মধ্যমগ্রাম পুরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অরবিন্দ মিত্র। স্বাভাবিকভাবেই মধ্যমগ্রাম পুরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডে খুশি জোয়ার। তবে ঘরের মানুষ ঘরে ফিরে সকলকে সাবধানতা অবলম্বন ও চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছেন ওই কাউন্সিলর। 

আরও পড়ুন,করোনা আক্রান্ত চিকিৎসক, রোগী ভর্তি বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা এবার ন্যাশনাল মেডিক্যালে

সত্তরোর্ধ্ব ওই কাউন্সিলর গত ২২ মার্চ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় পরে তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে। তবে এবার সুস্থ হয়ে বৃহস্পতিবার হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ওই কাউন্সিলর। তাঁকে ১৯ দিন হোম আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকেরা। 

আরও পড়ুন, করোনা আক্রান্ত সদ্য়োজাতের মা-বাবা, মাত্র ২১ দিনেই নবজাতককে দেখতে হল কঠোর পৃথিবী

উল্লেখ্য়,  কাউন্সিলর করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরেই করোনা সংক্রমণ রুখতে আরও সতর্ক হয় প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য দপ্তর। মধ্যমগ্রাম পুরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের প্রত্য়েককেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রশাসনের তরফে আপাতত সকলকে বাড়ি থেকে বেরোতে বারণ করা হয়েছে। বন্ধ রাখা হয়েছে এলাকার সমস্ত দোকানপাট। ইতিমধ্য়েই এলাকায় থাকা বাজারকেও অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরই পাশাপাশি, মধ্যমগ্রাম পৌরসভার চেয়ারম্যান তথা মধ্যমগ্রাম বিধানসভার বিধায়ক রথীন ঘোষের নির্দেশে দুটি স্বাস্থ্য টিম ১০ নম্বর ওয়ার্ডের বাড়ি বাড়ি গিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন।  মধ্যমগ্রামের ১০ নম্বর ওয়ার্ড কে বিশেষ করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কীকরণ ও চিহ্নিত করার জন্যই এই পদক্ষেপ। তবে এই মুহূর্তে আবার এলাকার কাউন্সিলরকে ঘরে ফিরে আসার খবর পেয়ে কার্যত বুকে বল পেয়েছেন এলাকাবাসী।





আরও পড়ুন, লকডাউনে কলকাতায় আটকে পড়ে আত্মহত্য়ার চেষ্টা, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ভিন রাজ্য়ের ইঞ্জিনিয়ার

করোনার কোপে বন্ধ কলকাতার আস্ত একটি হাসপাতাল, ১০০ ছাড়িয়ে চিকিৎসক-নার্স সহ কোয়ারেন্টাইনে
 
পার্ক সার্কাসের বেসরকারি হাসপাতালে প্রৌঢ়ের মৃত্য়ু, করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই অভিযোগ তুলল পরিবার