করোনায় আক্রান্ত সদ্য়োজাতের মা ও বাবা।  তাঁদের শিশু সবে ২১ দিন হল পৃথিবীর মুখ দেখেছে। এই পরিস্থিতিতে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক নার্সারি বিভাগেই রয়েছে সেই নবজাতক। যদিও শিশুর রিপোর্ট এখনও আসেনি। 

আরও পড়ুন, পয়লা বৈশাখে মমতার মিষ্টি উপহার, বুধবার রাজ্যে লকডাউন সফলে আধা সেনার পক্ষে সওয়াল রাজ্যপালের

হাসপাতাল সূত্রের খবর, শিশুটির পায়ুদ্বার তৈরি হয়নি, সঙ্গে  রয়েছে স্নায়ুর সমস্যাও। দিন কুড়ি আগে শ্রীরামপুর থেকে সন্তানকে নিয়ে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের শিশু শল্য বিভাগে আসেন তার বাবা-মা। অস্ত্রোপচারের জন্য শিশুকে গ্রিন বিল্ডিংয়ের ওই বিভাগে ভর্তি করানো হয়। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, প্রথম দফার অস্ত্রোপচারের পরে দিন তিনেক আগে  খবর আসে তার বাবা করোনা আক্রান্ত। সে কথা জানতে পেরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দ্রুত মা এবং শিশুকে আইসোলেশনে রাখার ব্যবস্থা করেন। দুই জনেরই নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য 'স্কুল অব ট্রপিক্যাল মেডিসিন'-এ পাঠানো হয়। এদিকে হাসপাতাল সূত্রের খবর আসে, বুধবার মায়ের শরীরেও করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে।  এর পরেই তাঁকে মেডিক্যাল কলেজের সুপার স্পেশালিটি বিল্ডিংয়ের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে স্থানান্তরিত করা হয়। যদিও শিশুর রিপোর্ট এখনও আসেনি। তাঁকে পাঠানো হয়েছে পেডিয়াট্রিক নার্সারি বিভাগে।

 আরও পড়ুন, করোনা আক্রান্ত এবার কলকাতা পুলিশের কর্মী, তিনি এখন এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের এক  চিকিৎসক জানিয়েছেন, 'অস্ত্রোপচারের পরে শিশুটির শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। মায়ের করোনা ধরা পড়ায় শিশুকে এখন আলাদা রাখতে হয়েছে।'  অপরদিকে, ছত্রিশগড়ে পাওয়া গেল আরেক চিত্র। যা ইতিমধ্য়েই সোশ্য়াল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় মা হাসপাতালে ভর্তি। এমন পরিস্থিতিতে পরিবারকেও হাসপাতালে আসার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। ফলে সেই শিশুর দায়িত্ব নিয়েছেন এইমসেরই দুই নার্স। ভাইরাল ভিডিওটি দেখার পর এখন অনেকের চোখেই সেই প্রশ্ন  ছত্রিড়গড়ের এমন মমতার ছায়া পড়বে তো কলকাতায়।



করোনা আক্রান্ত এবার কলকাতা পুলিশের কর্মী, তিনি এখন এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

করোনার কোপে বন্ধ কলকাতার আস্ত একটি হাসপাতাল, ১০০ ছাড়িয়ে চিকিৎসক-নার্স সহ কোয়ারেন্টাইনে
 
পার্ক সার্কাসের বেসরকারি হাসপাতালে প্রৌঢ়ের মৃত্য়ু, করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই অভিযোগ তুলল পরিবার