করোনা আক্রান্ত এক চিকিৎসক। যার জেরে এবার রোগী ভর্তি বন্ধ হতে পারে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেও। ওই চিকিৎসকের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়ার পরেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সূত্রের খবর, বন্ধ হয়ে যেতে পারে গোটা হাসপাতাল।

আরও পড়ুন, করোনা আক্রান্ত সদ্য়োজাতের মা-বাবা, মাত্র ২১ দিনেই নবজাতককে দেখতে হল কঠোর পৃথিবী

সূত্রের খবর, বুধবার এক পিজিটি চিকিৎসকের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। জানা গিয়েছে গত ৩ এপ্রিল থেকে তিনি সর্দি-কাশিতে ভুগছিলেন।  ওই চিকিৎসকের করোনা আক্রান্তের খবরেই  আতঙ্ক ছড়ায় গোটা হাসপাতালে। খোদ মেডিসিন বিভাগের প্রধান সহ ১৭ জন চিকিৎসককে পাঠানো হয় কোয়ারেন্টিনে। সঙ্গে রয়েছেন ২৮ জন নার্সও। বুধবার ২ জন গ্রুপ ডি স্টাফ প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত হয়েছেন। পাশাপাশি করোনা আক্রান্তে এই চিকিৎসকের সংস্পর্শে আরও কারা এসেছেন, কোন ওয়ার্ডের রোগীদের কাছে তিনি গিয়েছেন তার তালিকা তৈরি হবে বৃহস্পতিবার।

 আরও পড়ুন, লকডাউনে কলকাতায় আটকে পড়ে আত্মহত্য়ার চেষ্টা, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ভিন রাজ্য়ের ইঞ্জিনিয়ার

 প্রসঙ্গত, এনআরএস, আরজিকরের পর কলকাতা মেডিক্যাল কলেজেও রোগী ভর্তি বন্ধ করে দেওয়া হয় গত মঙ্গলবার। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এক রোগীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে কলকাতা মেডিকেল কলেজের ফের উত্তেজনা ছড়ায়। সেখান থেকেই ঘটনার সূত্রপাত। বন্ধ করে দেওয়া হয়, এমসিএইচ বিল্ডিং- এর সেকেন্ড ফ্লোরের মেডিসিন এবং ফিমেল মেডিসিন ওয়ার্ড। এবং সেখানে ভর্তি রোগীদের নমুনা পরীক্ষা ও অন্য বিল্ডিং-এ সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এক সদ্য়োজাতের মা। তাই কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ইডেন বিল্ডিং-এর সমস্ত রাস্তাঘাটও বন্ধ করে দেওয়া হয়। এখানেই শেষ নয়। উল্লেখ্য, করোনার সংক্রমণের জেরে এর আগেই পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের আরও দুটি হাসপাতাল, হাওড়া জেলা হাসপাতাল এবং চিনারপার্ক সংলগ্ন বেসরকারি চার্নক হাসপাতাল। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হওয়ার আশঙ্কায় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।



করোনা আক্রান্ত এবার কলকাতা পুলিশের কর্মী, তিনি এখন এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

করোনার কোপে বন্ধ কলকাতার আস্ত একটি হাসপাতাল, ১০০ ছাড়িয়ে চিকিৎসক-নার্স সহ কোয়ারেন্টাইনে
 
পার্ক সার্কাসের বেসরকারি হাসপাতালে প্রৌঢ়ের মৃত্য়ু, করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই অভিযোগ তুলল পরিবার