বিশ্বকাপ ২০১৯ ক্রমশ গ্রাস করে নিচ্ছে বৃষ্টি। দুদিন টানা খেলা বাতিল হওয়ার পর বুধবার পাকিস্তান বনাম অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ হলেও, বৃহস্পতিবার ফের খেলার দখল নিয়েছে বৃষ্টি। টসের নির্ধারিত সময়ে বৃষ্টি ছিল না। কিন্তু মাঠের অবস্থা আম্পায়ারদের পছন্দ হয়নি। মাঠ-কর্মীরা কাজ করতে করতেই ফের বৃষ্টি আসে। তারপর থেকে ক্রমাগত বৃষ্টির সঙ্গে লুকোচুরি চলছে। পিচের ঢাকনা একবার সরানো হচ্ছে, আবার ঝেঁপে বৃষ্টি আসছে। ঢেকে দিতে হচ্ছে পিচ।

আরও পড়ুন - ভারত-নিউজিল্যান্ড টস পিছিয়ে গেল, ম্যাচ হবে তো! কী বলছেন আম্পায়াররা

এমন অবস্থা যে ২০ ওভারের ম্যাচও করা যাবে কিনা তাই নিয়েই সন্দেহ দেখা দিয়েছে। আর এই বৃষ্টিস্নাত ট্রেন্টব্রিজে এসে নস্টালজিক হয়ে পড়লেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। এই মাঠেই জীবনের দ্বিতীয় টেস্ট খেলেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন - বয়স ভাঁড়িয়ে জিতেছিলেন বিশ্বকাপ! নয়া বিতর্কে ভারতীয় ক্রিকেট

দাদার মনে পড়ে গিয়েছে, ১৯৯৬ সালে সেই টেস্টের আগের দিনও বেশ বৃষ্টি ছিল নটিংহামে। বিরাটদের মতো তাঁরাও ম্য়াচের আগেরদিন অনুশীলনের সুযোগ পাননি। ম্যাচের দিনও আকাশএ বেশ মেঘ ছিল। তার উপর পিচ ছিল স্যাঁতসেতে। প্রথম উইকেট পড়ে গিয়েছিল প্রথম ওভারেই।

সেই ম্যাচে সৌরভ তিন নম্বরে নেমেছিলেন। ফলে শুরুতেই নামতে হয় তাঁকে। দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটার সময়ে ভারতের রান উঠেছিল মাত্র ৩০। আর এই খান থেকেই লম্বা জুটি গড়েছিলেন সচিন-সৌরভ। দুজনেই শতরান পেয়েছিলেন। দিনের শেষে ১৩০ রানে অপরাজিত ছিলেন সৌরভ। জানিয়েছেন, ড্রেসিংরুমে আসতেই তখনকার ভারত অধিনায়ক আজহার তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। পরে অধিনায়ক একটি দামী ঘড়িও উপহার দিয়েছিলেন তরুণ সৌরভকে।

আরও পড়ুুন - ৫৭ করলেই পিছনে পড়বেন সচিন, আরও এক বিশ্বরেকর্ডের সামনে কিং কোহলি

ট্রেন্টব্রিজের ওই টেস্টে তাঁর আন্তর্জাতিক কেরিয়ারের দ্বিতীয় টেস্ট হলেও কোনও বাড়তি চাপ অনুভব করেননি বলেই দাবি করেছেন তিনি। তার পরে এই মাঠে আরও ম্যআচ খেললেও ওই টেস্টের কথা ভুলতে পারেননি দাদা। তার আরও একটি কারণ রয়েছে।

সৌরভ জানিয়েছেন, লর্ডস টেস্টের ব্যাটটি দিয়েই ট্রেন্টব্রিজে খেলতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেই ব্যাটের উপরের দিকটা একটু ভেঙে যাওয়ায়, দুই টেস্টের মাঝের প্রস্তুতি ম্যাচে তিনি খেলেছিলেন সচিনের একটি ব্যাট দিয়ে। সেই প্রথম অত ভারী ব্যাট নিয়ে খেলেছিলেন বলে জানিয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন - রাহুলকে নিয়ে আত্মবিশ্বাসী দাদা, দলে চাইছেন একটি বদল - চার নম্বরের বাজি কে

তবে ইংল্যান্ডে চলতি মাসে যেইরকম বৃষ্টি হচ্ছে এত বৃষ্টি এর আগে কোনওদিন সাহেবদের দেশে দেখেননি বলেই দাবি করেছেন সৌরভ। জানিয়েছেন গত বছর এই সময়টা প্রছন্ড গরম পড়েছিল। ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল। তাই মনে করেছিলেন ক্রিকেট বিশ্বকাপটা নির্বিঘ্নেই হবে। কিন্তু আবহাওয়ার ভেলকিতে ধুরন্ধর প্রাক্তন ভারত অধিনায়কও বোকা বনে গিয়েছেন।