অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেটে রবিবার ঘটে গেল এক দুর্ঘটনা। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার মার্শ ওয়ানডে কাপের খেলা চলছিল। ফিল্ডিং করছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার অ্যাস্টন অ্যাগার। আর প্রতিপক্ষ দল সাউথ অস্ট্রেলিয়া দলের হয়ে ব্যাটিং করছিলেন অ্যাস্টনের ভাই ওয়েস অ্যাগার। স্টোইনিশে বলে শট নিয়েছিলেন ওয়েস। ৩০ গজ লাইনের ভেতরে থাকা অ্যাস্টনের কাছে ক্যাচ যাচ্ছিল। অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটে ভাল ফিল্ডার হিসেবে নাম আছে অ্যাস্টনের। কিন্তু বল ধরের ঠিক আগে পা পিছলে যায় অ্যাস্টনের। বল গিয়ে লাগে নাকের ওপর। সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পরেন অজি ক্রিকেটাররটি। 

 

 

আরও পড়ুন - খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না গৌতম গম্ভীরকে, নিখোঁজ পোস্টার দিল্লির রাস্তায়

তার নেওয়া শটে দাদা মাটিতে লুটিয়ে পরেছেন দেখে ব্যাটিং ক্রিজ ছেড়ে ছুটে আসেন ওয়েস। মাঠে ডাকা হয় ডাক্তারদের। নাক ওমুখে গুরুতর চোট পান অজি ক্রিকেটার। মুখ ও জার্সিতে রক্ত। তবে জ্ঞান হারাননি তিনি। প্রাথমিক চিতিত্সার পর তাঁকে মাঠের বাইরে নিয়ে যান ডাক্তাররা। দাদার চোটে দেখে ভয় পেয়ে যান সাউথ অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার ওয়েস অ্যাগর। তবে চোট খুব গুরুতর নয়। এটাই স্বস্তি দিয়েছে সবাইকে। 

 

আরও পড়ুন - বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সাত উইকেট, বিশ্বসেরার তালিকায় সাত নম্বরে পৌছে দিল সামিকে

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে ওয়েস জানান, ‘ ওর পা পিছসে গিয়েছিল, তাই বল গিয়ে লাগে ওর সানগ্লাসে। সঙ্গে সঙ্গে দু’টুকরো হয়ে যায় সেটা। ওটা দেখে আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম। নাকে চোট লেগেছে। তবে অ্যাস্টন এখন সুস্থ আছে। ডাক্তার দেখেছেন, স্টিচ করতে চেয়েছিল ডাক্তার। কিন্তু অ্যাস্টন সেটায় রাজি হয়নি। ও প্লাস্টিক সার্জেনকে দেখাতে চায়।’ চোট খুব বড় আকার না নিলেও অ্যাস্টনের মাটিতে লুটিয়ে পরার ছবি দেখে ক্রিকেট বিশ্বের অনেকেই চিন্তায় ছিলেন। তবে বড় কোনও দুর্ঘটনা হয়নি। এটাই স্বস্তি দিচ্ছে সবাইকে। 

আরও পড়ুন - দেশের প্রথম দিন রাতের টেস্ট, ইডেনকে পরামর্শ অ্যাডিলেডের