মারণ করোনা ভাইরাস যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলে। এর আগে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরফি মোর্তাজা, বর্তমানে বাংলাদেশের দলের একদিনের দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালের দাদা নাফিস ইকবাল। যিনি নিজেও জাতীয় দলের ক্রিকেটার ছিলেন। বর্তমান ক্রিকেটার নাজমুল ইসলাম। তবে বর্তমানে প্রত্যেক্যেই করোনা ভাইরাসের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেয়েছে। কিন্তু এবার মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন বাংলাদেশের জাতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটার মোশারফ হোসেন।

আরও পড়ুনঃভারতীয় হকি দলে অব্যাহত করোনার থাবা,আক্রান্ত ষষ্ঠ প্লেয়ার মনদীপ সিং

গত বছর মস্তিষ্কে টিউমার ধরা পড়ে মোশারফ হোসেনের। মাস চারেক আগে তার অস্ত্রোপচার হয়। বর্তমানে বাড়িতেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন মোশারফ। তার মধ্যেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন তিনি। জাতীয় দলের এই ক্রিকেটারের বাবা আগে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন৷ সেখান থেকেই সংক্রমণ হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে মোশারফ হোসেনের স্ত্রী ও সন্তানের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। মোশারফ জানিয়েছেন,'আমার বাবা আগেই কোভিড ১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন৷ তাঁকে সিএমএইচ হাসপাতালের আইসিইউ-তে ভর্তি ছিলেন। পরে আমার মধ্যে এই ভাইরাসের কিছু উপসর্গ দেখা দেয়৷ তারপর আমি পরীক্ষা করানো সিদ্ধান্ত নিই৷ আমার রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ তবে বর্তমানে আমার স্বাস্থ্য ঠিক আছে এবং আমি ঘরে নিজেকে আলাদা করে রেখেছি।'

আরও পড়ুনঃচ্যাম্পিয়ন্স লিগে করোনা ভাইরাসের থাবা, আক্রান্ত অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের দুই সদস্য

আরও পড়ুনঃইস্টবেঙ্গলের আইএস খেলার সম্ভাবনা ৮০ শতাংশ, সমর্থকদের ধৈর্য্য ধরার বার্তা নীতুদার

বাংলাদেশের ক্রিকেট মহলে করোনা ভাইরাসের থাবা লাগাতার লেগেই রয়েছে। মাশরফি মোর্তাজা সুস্থ হলেও তার পরিবারের একাধিক সদস্য় এখনও মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত। বাড়ির ৪ জন সদস্য করোনা আক্রান্ত হওয়ায় প্রশাসনের তরফে খোদ সাংসদের বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে। অপরদিকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার শাকিব আল হাসানের বাবাও। ফলে দেশের ক্রিকেটার ও তাদের পরিবারে লাগাতার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে উদ্বিগ্ন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।