গত ৪ অগাস্ট মঙ্গলবার,চিনা মোবাইল সংস্থা ভিভোর তরফ থেকে আগেই জানিয়ে দেওা হয়েছিল ২০২০ মরসুমে আইপিএলের টাইটেল স্পনসর থাকছে না তারা। যদিও বিসিসিআইয়ের তরফে সরকারি ভাবে কিছুই জানানো হয়নি। দুদিন বিচার বিবেচনা করে অবশেষে ভিভো নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। বিসিসিআইয়ের তরফে বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানানো হলে আসন্ন আইপিএলের ১৩ তম মরসুমে টুর্নামেন্টের টাইটেল স্পনসর থাকছে না ভিভো। ভিভোর সঙ্গে চুক্তি ছিন্ন করা হল।

আরও পড়ুনঃপ্রকাশ হল আইপিএলের চূড়ান্ত স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসেডিওর, জেনে নিন নিয়মাবলী

গত রবিবার আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলের বৈঠকের পরও জানানো হয়েছিল আইপিএলের টাইটেল স্পনসর থাকছে চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা। যার ফলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় বয়কট আইপিএল ডাক দেওয়া হয়। সমালোচনা করা হয় বিভিন্নরাজনৈতক মহল থেকেও। এর মাঝেই ৪ অগাস্ট ভিভো-র তরফ থেকে সরে যাওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। অবশেষে দেশজুড়ে প্রবল চিন বিরোধী হাওয়ার সামনে মাথা নত করতে হল বিসিসিআইকেও। জাতীয়তাবাদী আবেগকে সম্মান দিতেই চিনের মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভোর সঙ্গে আইপিএলের টাইটেল স্পনসরশিপ চুক্তি ছিন্ন করল ভারতীয় বোর্ড।

আরও পড়ুনঃতার দেখে সেরা ধোনিই, মত গিলক্রিস্টের

আরও পড়ুনঃরামমন্দিরের ভূমিপুজো ঐতিহাসিক ও গর্বের, পাকিস্তানে বসে সদর্পে জানালেন দানিশ কানেরিয়া

এ দিন বিসিসিআইয়ের তরফে এই বিতর্কিত বিষয়ে মাত্র এক লাইনের বিবৃতি জারি করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, 'ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড  এবং ভিভো মোবাইল পইন্ডিয়া প্রাভভেট লিমিটেড দুজনে মিলেই সম্মতিক্রমে আইপিএল ২০২০-র জন্য চুক্তিভঙ্গ করল।' ব্যস! স্রেফ এই একটা লাইনই লেখা হয় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের তরফে। ভিভোর সঙ্গে বার্ষিক ৪৪০ কোটি টাকার চুক্তি রয়েছে বিসিসিআইয়ের। ২০২২ পর্যন্ত আইপিএলের টাইটেল স্পনসর থাকার কথা ভিভোর। আপাতত চলতি বছরের জন্য চুক্তি ছিন্ন করা হলেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরের বছর পুনরায় আইপিএলের আঙিনায় ফিরে আসতে পারে চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থাটি। এদিন ভিভোর সঙ্গে চুক্তিভঙ্গের পর আইপিএলের জন্য নতুন স্পনসরের খোঁজও ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছে বিসিসিআই। খুব শীঘ্রই নতুন স্পনসরের নাম প্রকাশ করা হবে বলে জানানো হয়েছে বোর্ডের তরফে।