বল বিকৃতি কান্ডে নির্বাসনের পর বিশ্বকাপের মঞ্চে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে এসেছিলেন স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া দলেকে যেন একাই টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। ওয়ার্নারের দাপটের সামনে ফিকে হয়ে গিয়েছিলেন স্টিভ স্মিথ সহ গোটা অজি ব্যাটিং। কিন্তু অ্যাসেজে একেবারেই উল্টো ছবি। স্থানটা একই আছে, শুধু বদলে গেল ফর্মটা। স্টিভ স্মিথ যেখানে একাই অস্ট্রেলিয়াকে অ্যাসেজ দিলেন সেখানে লজ্জার রেকর্ড গড়ে ফেললেন ডেভিড ওয়ার্নার। শুক্রবার প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের ২৯৪ রানের জবাব দিতে নেমেছিল অজিরা। কিন্তু আবারও ব্যর্থ ডেভিড। মাত্র ৫ রান করে জোফরা আর্চারের বলে প্যাভেলিয়ানের পথ ধরলেন তিনি। এই নিয়ে এবারের অ্যাসেজে আটবার ১০ রানের কমে আউট হলেন ওয়ার্নার। যা একটি রেকর্ড। তবে লজ্জার রেকর্ড। 

আরও পড়ুন- সৌরভকে ‘বেনিফিট অব ডাউট’বোর্ডের এথিক্স অফিসারের

অ্যাসেজের ইতিহাসে এত খারাপ ব্যাটিংয়ের এর আগে দেখা যায়নি। এবারের ইংল্যান্ড সফরে এখনও পর্যন্ত মাত্র ৮৪ রান এসেছে বাঁহাতি ওপেনারের ব্যাট থেকে। প্রথম টেস্টে ২ ও ৮, দ্বিতীয় টেস্টে ৩ এবং ৫ , তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে অর্ধশতরান করে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন করেছিলেন ৬১, কিন্ত দ্বিতীয় ইনিংসে আবার ফিরলেন ০ রানে। চতুর্থ টেস্টে ম্যাঞ্চেস্টারে জোড়া শুন্য, আর পঞ্চম তথা শেষ টেস্টের প্রথম ইনিংসে মাত্র ৫ রান। অ্যাসেজের ইতিহাসে এত খারাপ ব্যাটিং এর আগে দেখা যায়নি। ১৯৯৭ সালে প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়াক আথারটন সাতটি ইনিংসে ১০ রানের কমে আউট হয়েছিলেন, এবার সেটাও ছাপিয়ে গেলেন অজি ওপেনার।  

আরও পড়ুন- জীবনের ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি ওয়ার্নের

অস্ট্রেলিয়া দল হিসেবে দুরন্ত। চতুর্থ টেস্ট জিতে অ্যাসেজ ধরে রেখেছে তারা। পঞ্চম টেস্টে টিম পাইনের দলের লক্ষ্য ১৮ বছর পর ইংল্যান্ডের মাটি থেকে টেস্ট সিরিজ জিতে ফেরার। শেষ টেস্ট ড্র করতে পারলেই এই কৃতিত্ব করতে পারবে ক্যাঙ্গারুরা। এত ভালর মাঝে ওয়ার্নারের ব্যাটিং বেশ কাঁটার মত অস্ট্রেলিয়া শিবিরের কাছে।  দ্বিতীয় ইনিংসে যদি ব্যাটিং করার সুযোগ পান, ওয়ার্নার পারবেন কি বিশ্বকাপের স্মৃতি গুলো ফিরিয়ে আনতে। নাকি আরও একটা ব্যর্থতা। উত্তরের অপেক্ষায় ক্রিকেট বিশ্ব। 

আরও পড়ুন-‘আদর্শ আছে, কিন্তু নকল করি না’ বলছেন নেইমার ভক্ত শুভমান