টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাতিল হতেই  নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল আইপিএলের ভবিষ্যৎ। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের আইপিএলের জন্য প্রথম পছন্দ ভারত থাকলেও, লাগাতার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে সে ঝুঁকি নেননি বিসিসিআই কর্তারা। আরব আমিরশাহিকেই আইপিএলের ভ্যেনু হিসেবে বেছে নেওয়া হয়। কিন্তু করোনা আবহে প্রাথমিকভাবে ঠিক ছিল দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামেই হবে গোটা টুর্নামেন্ট। কিন্তু  আরব দেশের ক্রিকেট বোর্ডের ইচ্ছা মাঠে ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ দর্শক নিয়ে প্রতিযোগিতা করার। 

আরও পড়ুনঃচিনে নিন আইপিএলের আসল বিনোদনকারীদের, প্রতিবছর যারা জমিয়ে রাখে গোটা টুর্নামেন্ট

আরব আমিরশাহির করোনা পরিস্থিতি নিয়নন্ত্রণে রয়েছে। এখনও পর্যন্ত সেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৬ হাজার জন। আইপিএল হওয়ার আগে পরিস্থিতি আরও উন্নতি হবে বলে আশাবাদী এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের কর্তারা। মাঠে দর্শক প্রবেশের বিষয়টি সেদেশের সরকার ও ক্রিকেট বোর্ডে উপর আগেই ছেড়ে দিয়েছে বিসিসিআই। শেষমেশ যা ইঙ্গিত, তাতে খালি গ্যালারিতে আইপিএল আয়োজন নাও করতে হতে পারে বিসিসিআইকে। ভিড়ে ঠাসা গ্যালারি দেখতে পাওয়া বর্তমান পরিস্থিতিতে সম্ভব নয়। তবে অন্তত ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ দর্শকদের মাঠে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হতে পারে আসন্ন আইপিএলে। 

আরও পড়ুনঃক্লাব নয় নাড়ির টান, একশো বছরে ফিরে দেখা লাল-হলুদ মশালের ইতিহাস

আরও পড়ুনঃশতবর্ষে লাল-হলুদ, প্রিয় ক্লাবের জন্মদিনে উৎসবে মাতলেন ইস্টবেঙ্গল ভক্তেরা

এই বিষয়ে আমিরশাহি ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান মুবাশশির উসমানি বলেছেন,'ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের থেকে সবুজ সঙ্কেত পেলেই আমরা সরকারের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ করব। আমরা অবশ্যই চাই আইপিএলের মতো এ রকম বড় প্রতিযোগিতা মাঠে বসে দেখুন দর্শকেরা। কিন্তু এ ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেবে দেশের সরকার। যদি অনুমতি মেলে তা হলে ৩০-৫০ শতাংশ আসন দর্শকদের জন্য রাখা যেতে পারে। আশা করছি, এ ব্যাপারে সরকারের অনুমতি পাওয়া যাবে।' রবিবার বৈঠকে বসছে আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল। সেখানেও দর্শক নিয়ে আইপিএলের বিষয়টি আলোচনা হতে পারে। ফলে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে দর্শকদের সামনেই মাঠ কাঁপাবেন বিরাট-রোহিত, ধোনিরা।