বর্তমানে ভারতীয় ক্রিকেট দলে টিকে থাকার মূল মন্ত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে শারীরিক ভাবে ফিট থাকা। অধিনায়ক বিরাট কোহলির ফিটনেস মন্ত্র গোটা দলে ছড়িয়ে পড়েছে। প্রত্যেক ক্রিকেটার তাই এখন সবসময় নিজের ফিটনেসের দিকে খেয়াল রাখেন। এইরকম পরিস্থিতিতে ভারতীয় দলের প্রাক্তন ফিটনেস ট্রেনার রামজি শ্রীনিবাসন জানিয়েছেন যে আগেকার দিনে ভারতের বিখ্যাত ক্রিকেটারদের অনেকেই তাদের নিজেদের শারীরিক সক্ষমতা সম্পর্কে এতটাই ওয়াকিবহাল ছিলেন যে তাদের ফিট থাকার জন্য আলাদা করে ওজন তোলার প্রয়োজন পড়তো না। 

আরও পড়ুনঃলকডাউনে লিয়েন্ডার পেজের দেওয়া 'নো লুক ফ্রাইং প্যান চ্যালেঞ্জে' মজে টেনিস দুনিয়া

ঘটনাচক্রে রামজি শ্রীনিবাসন মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলের সাথেও কাজ করেছেন। ভারতের ২০১১ সালে দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ জয় এবং ২০১৩ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ী দলের সদস্য ছিলেন তিনি। দুই বারই দলের ক্রিকেটারদের খুব কাজ থেকে দেখেছেন তিনি। সারা পৃথিবী জুড়ে এই মুহুর্তে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের আতঙ্কে বাড়িতে বসেই দিন কাটাচ্ছে সারা পৃথিবীর লোকজন। বাড়ি বসে নিজেকে ফিট রাখার উপায় নিয়েও এবার মুখ খুলেছেন রামজি। 

আরও পড়ুনঃ'অস্ট্রেলিয়ানরা জেতার জন্যই মাঠে নামে',মাইকেল ক্লার্কের বক্তব্যের পাল্টা দিলেন টিম পেইন

আরও পড়ুনঃকরোনা মোকাবিলায় ১০ কোটি টাকা অনুদান দিল আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

রামজি জানিয়েছেন নিজেকে ফিট এবং তরতাজা রাখতে রোজ রোজ জিম যাওয়ার দরকার পড়ে না। তিনি ভারতীয় তারকা সচিন টেন্ডুলকার, বীরেন্দ্র সেওবাগ প্রভৃতি তারকাদের কথা উল্লেখ করে বলেছেন যে এদের কে দেখে সবার বোঝা উচিত যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলতে গেলেও প্রতিদিন জিমে যাওয়ার দরকার পড়ে না। হ্যাঁ, অনেক খেলোয়াড় হয়তো প্রতিদিন জিমে যান, কিন্তু সেটা না করেও নিজেকে ফিট রাখা সম্ভব। সচিন, সেওবাগের মতো খেলোয়াড়রা তা করে দেখিয়েছেন। যারা বুদ্ধিমান তারা নিজের শরীর কে চেনে এবং সেই অনুপাতে প্রয়োজন মতো পরিশ্রম করে নিজেকে ফিট রাখেন।