লকডাউনের সময়কার ইলেকট্রিক বিল নিয়ে রাজ্য জুড়ে চলছে আন্দোলন। বিশেষ করে কলকাতায় এই আকাশ ছোয়া বিলের অভিযোগ বেশি। করোনা ভাইরাসের কারণে দেশ জুড়ে লকডাউন চলাকালীন মিটার রিডিং করা সম্ভব হয়নি। তারপর থেকেই বহুমানুষের বাড়িতে তাদের নর্মাল বিলের তুলনায় বহুগুন বেশি বিল পাঠানো হচ্ছে বলে অভিযোগ। এমনিতে করোনা ও লকডাউনের কারণে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। অবেকের বন্ধ রয়েছে অফিস। এই পরিস্থিতি এই অসংলগ্ন আকাশছোঁয়া বিল শোদ করতে নাভিশ্বাস উঠছে আম আদমির। শুধু যে বাংলা তা নয়, দেশের অন্যান্য প্রান্তের অবস্থাও একই। এই সমস্যার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না সেলেবরাও। সেই তালিকায় রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট তারকা হরভজন সিংও। প্রতিমাসে তার মুম্বাইয়ের বাড়িতে যা বিল আসে তার তেকে ৭ গুন বেশি বিল এসেছে বলে অভিযোগ ভাজ্জির।

আরও পড়ুনঃ৫ ব্যাটসম্যানের নাম জানালেন কুম্বলে, যাদের বল করতে হয়নি বলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন তিনি

আদানি ইলেকট্রিসিটি মুম্বই ও সংলগ্ন এলাকায় বিদ্যুত সরবরাহ করে। পশ্চিম বাংলার মত তাদের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগে স্থানীয় বাসিন্দাদের। এই লকডাউন পিরিয়ডের মিটার রিডিং দেখা হয়নি। বলা হয়েছিল আগের বিল দেখে গড় বিল পাঠানো হবে। কিন্তু মন গড়া অনেক বেশি টাকার বিল পাঠানো হচ্ছে মুম্বই ও সংলগ্ন এলাকায়। এবার আদানি ইলেকট্রিসিটি-র বিরুদ্ধে হরভনও সোচ্চার হলেন। কারণ হরভজনের মুম্বাইয়েপ বাড়িতে সাধারণত বিল আসে সাড়ে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা। কিন্তু এবার বিল এসেছে প্রায় ৩৪ হাজার টাকা। বিল দেখে তো কার্যত অবাক ও মাথায় হাত দিয়েছেন টার্বুনেটর। অন্যান্য মাসের তুলনায় এমাসের বিল প্রায় ৭ গুন বেশি।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে অনুষ্কার সঙ্গে কাটানো সেরা মুহূর্ত কোনটি, জানালেন বিরাট কোহলি

আরও পড়ুনঃনাতাসার বেবি বাম্পে হাত দিয়ে আলিঙ্গনরত হার্দিক, ভাইরাল মিষ্টি মুহূর্তের একাধিক ছবি

এই অসংলগ্ন বিল নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছে ভারতীয় স্পিনার। তিনি লিখেছেন,'এত বিল! গোটা মহল্লার বিল কি আমাকে পাঠিয়ে দিয়েছে নাকি! ৩৩,৯০০ টাকা! গড়ে যা বিল আসে তার থেকে সাত গুণ বেশি! বাহ্!' নিজের মিটার নাম্বারও সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়েছেন হরভজন সিং। হরভজনের এই প্রতিবাদ সাধারণ মানুষকে অনেকটা সমর্থন জোগাবে বলে মনে করছেন সকলে। কিন্তু যেই তারকা নিজের স্পিনের ভেলকিতে বিপক্ষের ব্যাটসম্যানকে করেছেন, সেই টার্বুনেটরই আবার ইলেকট্রিক বিলের ভেলকিতে কুপকাত।