মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতির সময় বাঁ হাতের তর্জনীতে গুরুতর আঘাত পান ক্রিকেটার পুনম যাদব। আঘাত এতটাই ভয়াবহ ছিল যে বিশ্বকাপে তার অংশগ্রহণ প্রশ্নচিহ্নের মুখে পড়ে যায়। বাকি সদস্যরা সকলে যখন মানসিকভাবে বিশ্বকাপের জন্য তৈরি তখন এই আঘাত ভীষণ বিচলিত করে তোলে পুনমকে। কিন্তু হাল ছেড়ে দিয়ে বসে থাকেননি তিনি। চটজলদি আঙুলে একটি প্লেট বসিয়ে নেন তিনি। সময়ের সঙ্গে খেলায় জিতে শনিবার বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামে পুনম। এবং শুধু নেমেই থেমে থাকেননি তিনি। তার অসাধারণ বোলিংয়ের দৌলতেই অস্ট্রেলিয়া ভারতের কাছে হার মানতে বাধ্য হয়। 

ডিসেম্বরের ২৬ তারিখ দেশে ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমীতে প্রস্তুতি পর্ব চলাকালীন আঙুলে চোট পেয়েছিলেন ২৮ বছর বয়সী আগ্রার স্পিনার। বিশ্বকাপের ২ মাস আগে দলের মূল স্পিনারের এইরকম চোট দেখে ভারতীয় শিবিরের মাথায় হাত পড়ে যায়। একটা ব্যাপার সকলের কাছেই পরিস্কার ছিল যে তিনি বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিমূলক ত্রিদেশীয় সিরিজে খেলতে পারবেন না। তাই মূল লক্ষ ছিল তাকে বিশ্বকাপের জন্য ফিট করে তোলা। 

ভারতীয় দলে তার নির্ভরযোগ্যতা এতটাই বেশি ছিল যে তাকে বাদ দিয়ে দল নির্বাচনের কথা ভাবেননি নির্বাচকরা। সময়ের মধ্যে পুনমকে সুস্থ করে তোলার জন্য সকলে ধন্যবাদ জানিয়েছেন দলের ফিজিও ট্রেসি ফার্নান্দেজকে। পুনমের চোট খুবই গুরুতর ছিল এবং একমাত্র ট্রেসির অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্যই তাকে সময়ে সুস্থ অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে বলে ভারতীয় দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। সময়মতো দলে ফিরে পারফরম্যান্স করতে পেরে নিজেও খুশি পুনম। 

পুনম নিজেও ফিজিও ও তার ভাগ্যকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। বোলিং আর্মের বদলে বাঁ হাত ইনজুরি হওয়ায় সেরে উঠতে বেশি সময় লাগেনি বলে জানিয়েছেন তিনি। তার চারটে উইকেটের ৩ টেই এসেছে গুগলিতে। অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা স্পিন খেলতে অভ্যস্ত না হওয়ায় তার বল ধরতে পারেনি। আপাতত টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী তিনিই।