সপ্তাহ শেষের ছুটির দিনগুলি আর পাঁচটা দিনেক মতো সাধারণ খাওয়া দাওয়া মোটেই ভালো লাগে না। তাই ছুটির দিনগুলিকে জমিয়ে তুলতে বিভিন্ন রকমের রেসিপি শিখে রাখাই যায়। পোস্তর রেসিপি পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। আর এই পোস্তর সঙ্গে যদি যুগলবন্দী তে থাকে চিকেন, তবে আর কথাই নেই। বাড়িতে আসা অতিথিদের তাক লাগিয়ে দিতে পারবেন, আপনার রান্নার কেরামতি দেখিয়ে। তাই দেরি না করে চটজলদি দেখে নেই, চিকেন পোস্তর অনবদ্য এই রেসিপি।

আরও পড়ুন- একঘেয়ে পনিরের রেসিপি নয়, বানিয়ে দেখুন সুস্বাদু পনির পোলাও
 
চিকেন পোস্ত বানাতে লাগবে-

দেশি চিকেন ৫০০ গ্রাম
নারকেলের দুধ হাফ কাপ
পোস্ত বাটা হাফ কাপ
পেঁয়াজ কুঁচি ১ কাপ
আদা বাটা ২ টেবল চামচ
রসুন বাটা ২ চা চামচ
রোস্টেড জিরে গুঁড়ো ১ চা চামচ
হলুদ গুঁড়ো ১ চা চামচ
লাল লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ
কাশ্মিরি লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ
কাঁচা লঙ্কা ৩ থেকে ৪ টে
ঘি ১ টেবল চামচ
লবন স্বাদ মতন

আরও পড়ুন- যাঁরা ঠাকুমা-দিদিমার বানানো পদ ভালোবাসেন, এই রেসিপি রইল তাঁদের জন্য

যে ভাবে বানাবেন

চিকেন খুব ভাল করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিন।
কুকারে সামান্য লবন দিয়ে চিকেন সিদ্ধ করে  নিয়ে স্টক আলাদা করে সরিয়ে রাখুন
পাত্র গরম করে তাতে ঘি দিয়ে পেঁয়াজ কুঁচি লাল করে ভেজে নিন।
এরপর এতে আদা বাটা, রসুন বাটা-সহ সমস্ত গুঁড়ো মশলা দিয়ে খুব ভালো করে কষিয়ে নিন।
প্রয়োজনে চিকেনের স্টক ব্যবহার করুন। (রান্নায় আলাদা জল ব্যবহার করবেন না, চিকেনের স্টকেই রান্না করলে স্বাদ বজায় থাকবে)
মশলা খুব ভালো করে কষিয়ে, তেল বেরিয়ে এলে সেদ্ধ করা মাংস দিয়ে আরও মিনিট ২০ কষিয়ে নিন।
মাংস কষানো হয়ে গেলে ঢেকে ঢেকে রান্না করে খুব ভালো করে সিদ্ধ করে নিন।
রান্নার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে মাংস খুব ভালো মতো সিদ্ধ হয়। যাতে চামচে করে কেটে নেওয়া যায়, এমন ভাবেই এই রান্নায় মাংস সিদ্ধ করতে হয়।
এরপর উপর থেকে নারকেলের দুধ ও পোস্ত বাটা দিয়ে আরও মিনিট ১৫ রান্না করুন।
প্রয়োজন মত গ্রেভি শুকিয়ে নিন বা রেখে উপর থেকে সামান্য ঘি ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।
গরম গরম ভাত বা পরোটার সঙ্গে পরিবেশন করুন অন্য স্বাদের চিকেনের এই পদ।