লকডাউন ভেঙে বাড়িতে পার্টি করার জন্য মোয়েস কিনের দু সপ্তাহের মাইনে কেটে নিল এভার্টন ক্লাব। সম্প্রতি লকডাউন অমান্য করে বাড়িতেই বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে বাড়িতে একটি পার্টি থ্রো করেন মোয়েস। পরে পার্টিতে সেলিব্রেশনের ভিডিও একটি স্ন্যাপচ্যাট গ্রুপে পাঠান তিনি। যেখানে তাঁর হাউস পার্টিতে উপস্থিত মহিলা অতিথিদের ডান্সের কিছু ক্লিপিং ছিল। কোয়ারেন্টাইন অগ্রাহ্য করে লকডাউন অমান্য করে মোয়েসের সেই ভিডিও সম্পর্কে পরবর্তীতে অবগত হয় তাঁর ক্লাব।স্ট্রাইকারের কার্যকলাপে ক্ষুব্ধ এভার্টন এক বিবৃতি জারি করে জানায়, 'ক্লাব তাঁদের এক ফুটবলারের আচরণে হতভম্ব। ইতালি ফুটবলার মোয়েস কিনের হাউস পার্টির রিপোর্ট আমাদের কাছে এসেছে। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত ব্রিটিশ সরকারের নির্দেশিকা ও ক্লাবের পলিসি দু’টোই সে লঙ্ঘন করেছে।’

আরও পড়ুনঃহন্নে হয়ে খোঁজার পর অবশেষে বিশ্বকাপের মেডেল পেলেন আর্চার

ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। যেখানে দেশের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিনের পর দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে, সেখানে কীভাবে পার্টি করলেন মোয়েস তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। মোয়েস কঠোর শাস্তির দাবিও করা হয়। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখেন ক্লাব কর্তারা। মোয়েস কিনের বিষয়ে আলোচনায় বসেন তারা। অবশেষে সিদ্ধান্ত হয়, এই ঘটনার জন্য মোয়েস কিনের দুই সপ্তাহের মাইনে কাটবে ক্লাব কর্তৃপক্ষ। যার পরিমাণ প্রায় ১ লক্ষ ৬০ হাজার ডলার। পাশাপাশি অন্য কোনও শাস্তি ধার্য করা যায় কিনা সেই বিষয়েও খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে এভারটন কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুনঃভিভ রিচার্ডস ও ধোনিই কপিল দেবের নতুন লুকের অনুপ্রেরণা

আরও পড়ুনঃহরভজনের তৈরি বিশ্বের সেরা অফ স্পিনারদের তালিকা থেকে বাদ অশ্বিনের নাম

এর আগে লকডাউন ভেঙে একইভাবে ক্লাবের রোষের মুখে পড়েছিলেন  ম্যাঞ্চেস্টার সিটির প্লেয়ার জ্যাক গ্রিলিচ, কাইল ওয়াকাররা। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে নিজের বাড়িতে দুই যৌন কর্মীর সঙ্গে পার্টিতে মত্ত হয়েছিলেন ম্যান সিটি রাইট ব্যাক কাইল ওয়াকার। সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে ওয়াকারের এই কাজ মোটেই ভালোভাবে নেয়নি তাঁর ক্লাব। বিভিন্ন সংবাদপত্র, ট্যাবলয়েডে ওয়াকারের কান্ডকারখানা প্রকাশ পেতেই তাঁর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ আনে সিটি। প্রয়োজনে তাঁকে জরিমানাও করার কথাও জানানো হয়। এরপর সোশ্যাল মিডিয়ায় এক ভিডিওবার্তায় অনুরাগীদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলেন তিনি।