১ জুন থেকে এটিকের সঙ্গে জুটি বেঁধে নতুন ক্লাব হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে সবুজ  মেরুণ। লকডাউনের জন্য বোর্ড মিটিং অনুষ্ঠিত না হওয়ায় নতুন ক্লাবের নাম, লোগো ও জার্সি এখনও নির্ধারিত হয়নি। অপরদিকে,করোনা রুখতে লকডাউনের জেরে আই লিগ ট্রফি এখনও হাতে তোলা হয়নি ফুটবলারদের। বাকি রয়ে গিয়েছে সেলিব্রেশনও। একইসঙ্গে ১৫ জুন থেকে সমর্থকদের জন্য বাগান টেন্ট পুনরায় খুলে দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে ক্লাব কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে। ১৬ জুন থেকে  তাঁবুতেই পাওয়া যাবে চ্যাম্পিয়ন মোহনবাগানের মার্চেনডাইস। অর্থাৎ তাঁবু থেকেই ইচ্ছে মতো চ্যাম্পিয়নশিপ প্রোডাক্ট কিনে নিতে পারবেন বাগানপ্রেমীরা। এই সব কিছুর মধ্যেই বাগান সূত্রে আরও একটি খবর চলতি মরসুমে কলকাতা লিগ হলে সবুজ-মেরুণের কোচের দায়িত্ব ফের সামলাতে দেখা যেতে পারে সঞ্জয় সেনকে।

আরও পড়ুনঃসৌরভের প্রশংসায় পঞ্চমুখ শোয়েব,বললেন এমন সাহসী ক্রিকেটার দেখিনি 

এমনিতেই এটিকের কোচিং স্টাফ হিসেবে হাবাসের সহকারি ছিলেন সঞ্জয় সেন। এবছরের আইএসএলেও সেই দৃশ্যই দেখা যাবে। এই মরসুমে য়েহেতু এটিকের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে বাগান, তাই কলকাতা লিগে ফের সঞ্জয় সেনকেই দলের দায়িত্ব দেওয়ার ভাবনা চিন্তা চলছে। সেক্ষেত্রে সহকারীর দায়িত্ব পালন করতে পারেন রঞ্জন চৌধুরী।যদিও সবটাই এখনও ভাবনা-চিন্তার স্তরে রয়েছে। এটিকে ও মোহনবাগানের সংযুক্তিকরণের পর নতুন দলের বোর্ড মিটিং না হওয়া পর্যন্ত কোনও কিছুই নিশ্চিত নয়। তবে এটা অনুমান করতে অসুবিধা হয় না যে কলকাতা লিগে হাবাস কোচিং করবেন না দলকে।

আরও পড়ুনঃফের হাঁটুর চোটে কাবু,চলতি বছরে আর মাঠে নামবেন না ফেডেক্স

আরও পড়ুনঃপ্রাক্তন ক্রিকেটারের অস্বাভাবিক মৃত্যু, গ্রেফতার ছেলে

আইএসএলের শক্তিশালী দল নিয়ে এটিকে-মোহনবাগানের কলকাতা লিগ খেলার কোনও যৌক্তিকতা খুঁজে পাবেন না কেউই। সুতরাং, সেক্ষেত্রে এটিকের ভারতীয় ফুটবলারদের সঙ্গে জুটি বেঁধে মাঠে নামতে পারেন বাগানের শুভ ঘোষ, শেখ সাহিলের মত তরুণ-তুর্কিরা। সঞ্জয় সেন ইতিমধ্যেই কোচ হিসেবে মোহনবাগানকে প্রভূত সাফল্য এনে দিয়েছেন। ২০১৪-১৫ মরশুমে তাঁর হাত ধরেই দীর্ঘ ১৩ বছরের খরা কাটিয়ে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হয় মোহনবাগান। শুধু বাগান তাঁবুতে আইলিগ ট্রফি এনে দেওয়াই নয়, সঞ্জয় সেনের কোচিংয়ে সবুজ-মেরুন শিবির জিতেছে ফেড কাপও। ফলে পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে কলকাতা লিগে মোহনবাগানের হেডস্যারের ভূমিকায় ফের দেখা যাবে সঞ্জয় সেনকে।