গত মরসুম শেষ হতেই তাঁর ও পিএসজির সম্পর্কের অবনতির খবর সামনে চলে এসেছিলে। আর প্যারিসে ফিরতে চান না, বলেছিলেন নেইমার। একটা সময় ধরেই নিয়েছিলেন নিজের প্রাক্তন ক্লাব বার্সেলোনাতেই ফিরে যাচ্ছেন তিনি। দলবদলের বাজারে সবার ফোকাসে ছিলেন ব্রাজিলের নাম্বার টেন। বার্সেলোনা তাঁকে দলে ফিরেয়ে নেওয়ার অনেক চেষ্টা করে। বার্সেলোনায় যাচ্ছেন ধরে নিয়ে পিএসজির হয়ে অনুশীলনও শুরু করেননি প্রথম থেকে। কিন্তু যত দিন গেছে ততই নেইমারের স্পেনে ফেরার পথ কঠিন হয়েছে। আর দলবদল সময় শেষ হতেই ছবিটা পরিস্কার হয়ে যায়। এক ফোঁটা ইচ্ছে না থাকলেও প্যারিসেই থেকে যেত হয় নেইমারকে। চোটের জন্য শুরু থেকে মাঠে নামতে পারেননি। গত সপ্তাহে ব্রাজিলের হয়ে মাঠে নেমে গোলও করেছিলেন। আর শনিবার মরসুমে প্রথমবার মাঠে নেমেছিলেন প্যারিস সাঁ জাঁ’র জার্সি গায়ে। আর প্রথম ম্যাচেই গোল করলেন তিনি। শুধু গোল করাই নয়, স্ট্রাসবার্গের তাঁর করা গোলেই জয় তুলে নিল পিএসজি। ক্লাব ফুটবলে নেইমারের এই ফিরে আসাকে ব্রাজিলিয়ান তারকার ভক্তরা রূপকথার সঙ্গে তুলনা করছেন। 

আরও পড়ুন - মানের জোড়া গোলে পিছিয়ে থেকে জয় লিভারপুলের, বেঞ্জেমার জোড়া গোলে জয় রিয়ালের

প্যারিসে যখন নেইমার দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করছেন তখন শনিবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে দাপট দেখালেন তরুণ ইংলিশ স্ট্রাইকার ট্যামি আব্রাহাম। তাঁর করা হ্যাটট্রিকে ভর করেই উলভারহ্যাম্পটনকে অ্যাওয়ে ম্যাচে পাঁচ দুই গোলে উড়িয়ে দিল চেলসি। ব্লুজদের হয়ে প্রথম গোলটা করেছিলেন টোমোরি। খেলার বয়েস তখন ৩১ মিনিট। তারপরই ম্যাচের রাস নিজের পায়ে নিয়ে নেন তরুণ স্ট্রাইকার ট্যামি। ৪৩ মিনিট, ৪১ মিনিট ও ৫৫ মিনিটে পরপর তিনটি গোল করে চেলসির জয় পাকা করে দেন অব্রাহাম। তবে এখানেই শেষ নয়, ৬৯ মিনিটে প্রতিপক্ষকে একটি গোলও উপহার দিলেন এই স্ট্রাইকার। আত্মঘাতী গোল করে বসেন ট্যামি। এরপর প্রতিপক্ষ একটি গোল শোধ করলেও ইনজুরি টাইমে আরও একটি গোল চাপিয়ে দেয় চেলসি। 

আরও পড়ুন - জমে উঠেছে লিগের লড়াই, ড্র পিয়ারলেসের, জয় পেল মহমেডান, রবিবার টিকে থাকার লড়াই বাগানের

প্রমিয়ার লিগের অন্য ম্যাচে বড় জয় পেল  টটেনহ্যাম হটস্পারও। চার শুন্য গোলে তারা হারাল ক্রিস্টাল প্যালেসকে। টটেনহ্যামের হয়ে জোড়া গোল সন মিনের, এরিক লামেলা করেন একটি গোল। আরেকটি গোল আত্মঘাতী। প্রিমিয়ার লিগে জয় পেল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডও। ১-০ গোলে তারা হারাল লেস্টার সিটিকে। পেনাল্টি থেকে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন মার্কোস।

আরও পড়ুন - ‘তিন বছর পর সেদিন মিষ্টি খেয়েছিলাম’ বলছেন ভারত অধিনায়ক সুনীল