ঘরোয়া ত্রিমুকুট জয় করলো পিএসজি। পেনাল্টি শুট আউটে অলিম্পিক লিওন-কে হারিয়ে কোপা দে লা লিগ জেতার সাথে ত্রিমুকুট জয় সম্পন্ন করে ফেললেন নেইমাররা। পেনাল্টি শুট আউটে ৬-৫ গোলে জিতে মরশুমের তৃতীয় ট্রফি জিতে নিল পিএসজি। এর আগে নির্ধারিত সময়ের খেলায় দুই পক্ষই কোনও গোল করতে পারেনি। এর পর আরও অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেও লকগেট না খোলায় খেলা গড়ায় পেনাল্টি শুট-আউটে। 

 

/p>

আরও পড়ুনঃক্লাব নয় নাড়ির টান, একশো বছরে ফিরে দেখা লাল-হলুদ মশালের ইতিহাস

কোপা দে লা লিগের ফাইনালে টমাস টুচেলের দলকে নামতে হয়েছিল কিলিয়ান এমব‍্যাপে কে ছাড়াই। সাধারণত ফ্রেঞ্চ লিগের খেলায় গত কয়েকবছর ধরে টানা লিওনকে বড় বড় ব্যবধানে হারিয়ে আসছে পিএসজি। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচ বলেই হয়তো লিওন ছিল অনেক বেশি মরিয়া। দুই দলই গোল লক্ষ্য করে প্রচুর শট মেরেছেন এবং তার মধ্যে দুই দলেরই ১০ টির-ও বেশি শট লক্ষ্যে ছিল। সহজ সুযোগ নষ্ট করেছেন নেইমার, ডি মারিয়া। লিওন-ও অতিরিক্ত সময়ের শেষ দিকে ভালো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েছে। এরপর পেনাল্টি শুট আউটে দুই দলই নিজেদের প্রথম পাঁচটি শট থেকে গোল করে। এরপর সাডেন ডেথে লিওনের প্রথম শটটি বাঁচিয়ে দেন নাবাস। পিএসজির হয়ে শট নিতে যাওয়া সারাবিয়া অবশ্য কোনও ভুল করেননি পিএসজির সাডেন ডেথের প্রথম শটটি থেকে লক্ষ্যভেদ করতে। ৬-৫ ব্যবধানে পেনাল্টি শুট আউট জিতে ট্রফি ঘরে তোলে নেইমাররা। 

 

 

আরও পড়ুনঃচিনে নিন আইপিএলের আসল বিনোদনকারীদের, প্রতিবছর যারা জমিয়ে রাখে গোটা টুর্নামেন্ট

আরও পড়ুনঃপরিবারে নতুন অতিথির প্রথম ছবি শেয়ার করলেন হার্দিক পান্ডিয়া

দুই দলই এবার পাড়ি দেবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের উদ্দেশ্যে। পিএসজির হাতে এখনও দুই সপ্তাহ সময়  রয়েছে। তাদের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলতে হবে আটালান্টার বিরুদ্ধে। কিন্তু শেষ দুটি ফাইনালে তাদের গোল করার অক্ষমতা চিন্তায় রাখবে টমাস টুচেল-কে। অপরদিকে জুভেন্তাসের বিরুদ্ধে শেষ ষোলোর দ্বিতীয় পর্বের ম্যাচ খেলতে তুরিন উড়ে যাবে লিওন। আর ঠিক এক সপ্তাহ হাতে রয়েছে তাদের। প্রথম অফিসিয়াল ম্যাচে আহামরি কিছু না করলেও নেইমার, ইকার্ডি-দের বিরুদ্ধে গোল খাননি তারা। জুভেন্তাসের বিরুদ্ধেও একই কাজ করতে চাইবেন মেমফিস দি পাই-রা। আর এই মুহুর্তে জুভেন্তাসের ফর্ম দেখে নিজেদের লক্ষ্যে সফল হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী রুডি গার্সিয়া-র দল।