সোডিয়ামের অভাবে হতে পারে মৃত্যু, জেনে এর লক্ষণ ও দ্রুত চিকিৎসা পদ্ধতি

| Sep 25 2022, 10:27 PM IST

সোডিয়ামের অভাবে হতে পারে মৃত্যু, জেনে এর লক্ষণ ও দ্রুত চিকিৎসা পদ্ধতি

সংক্ষিপ্ত

সোডিয়ামের অভাবকে ডাক্তারি ভাষায় হাইপোনেট্রেমিয়াও বলা হয়। হাইপোনেট্রেমিয়া দুই প্রকার। প্রথমত, যখন শরীরের সোডিয়ামের মাত্রা 48 ঘন্টা বা তার বেশি সময় ধরে কমে যায়, তখন একজন ব্যক্তির দীর্ঘস্থায়ী হাইপোনেট্রেমিয়া হয়। এই ধরনের হাইপোনাট্রেমিয়ার লক্ষণ সাধারণত বিরল। 

আমরা প্রায়শই অত্যধিক লবণ খাওয়ার ফলে সৃষ্ট রোগের কথা বলে থাকি, কিন্তু আপনি কি এটি জানেন? শরীরে সোডিয়ামের অভাবও বিপজ্জনক। শরীরে সোডিয়ামের অভাবও অনেক রোগের কারণ হতে পারে। শরীরে তরলের পরিমাণ খুব বেশি বা খুব কম হয়ে গেলে রক্তে সোডিয়ামের পরিমাণ খুব কম হয়ে যায়। এটা মনের উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। রক্তে থাকা সোডিয়াম শরীরে বিদ্যুৎ সঞ্চালন করতে সাহায্য করে, যার ফলে আমরা যে কোনো কাজ সঠিকভাবে করতে পারি। সোডিয়াম একটি ইলেক্ট্রোলাইট যা শরীরের প্রতিটি কোষে জল নিয়ন্ত্রণ করে।

সোডিয়ামের অভাবকে ডাক্তারি ভাষায় হাইপোনেট্রেমিয়াও বলা হয়। হাইপোনেট্রেমিয়া দুই প্রকার। প্রথমত, যখন শরীরের সোডিয়ামের মাত্রা 48 ঘন্টা বা তার বেশি সময় ধরে কমে যায়, তখন একজন ব্যক্তির দীর্ঘস্থায়ী হাইপোনেট্রেমিয়া হয়। এই ধরনের হাইপোনাট্রেমিয়ার লক্ষণ সাধারণত বিরল। দ্বিতীয়, তীব্র হাইপোনাট্রেমিয়া, শরীরের সোডিয়াম স্তরের হঠাৎ ড্রপের কারণে হয়। এই অবস্থায়, মস্তিষ্কে প্রচণ্ড ফোলাভাব হয়, যার কারণে ব্যক্তি কোমাতে যেতে পারে বা মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। সোডিয়াম নিয়মিত রক্তচাপ বজায় রাখতে সাহায্য করে। এটি শরীরের তরল ভারসাম্য বজায় রাখে এবং পেশী এবং স্নায়ু সক্রিয় করতে সাহায্য করে। একজন প্রাপ্তবয়স্কের সোডিয়ামের মাত্রা ১৩৫ থেকে ১৪৫ mEq/L এর মধ্যে হওয়া উচিত।

Subscribe to get breaking news alerts

সোডিয়ামের অভাব হলে কি হয়?
হেলথ লাইনের মতে, যখন রক্তে সোডিয়ামের ঘাটতি হয়, তখন শরীরে পানির পরিমাণ বাড়তে থাকে এবং এর ফলে শরীরে ফুলে যায়। এর ফলে অনেক সমস্যা হতে পারে। শুধু তাই নয়, জীবনও বিপদে পড়তে পারে। গুরুতর সোডিয়ামের অভাব কোমা হতে পারে। এটি মস্তিষ্ককে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে কারণ মস্তিষ্কের প্রদাহ স্মৃতিশক্তি হ্রাস এবং অন্যান্য মানসিক রোগের দিকে পরিচালিত করে।

সোডিয়ামের অভাবের লক্ষণগুলি কী কী?
হাইপোনাট্রেমিয়ার লক্ষণগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে:

বমি বমি ভাব এবং বমি
ক্রমাগত মাথাব্যথা
হতাশ হতে
শক্তির অভাব এবং ক্লান্ত বোধ (সর্বদা ক্লান্ত বোধ করা)
অস্থিরতা এবং বিরক্তি
পেশী দুর্বলতা এবং ক্র্যাম্প
মৃগী রোগের ফিরে আসা
কোমায় পড়ে যাওয়া

হাইপোনাট্রেমিয়া কীভাবে চিকিত্সা করা হয়?
কম তরল পান করা উচিত
মূত্রবর্ধক ওষুধ গ্রহণ
অন্তর্নিহিত অবস্থার চিকিত্সা
গুরুতর হাইপোনাট্রেমিয়া একটি জরুরি অবস্থা। ডাক্তারদের এটি চিকিত্সা করা প্রয়োজন