জলাতঙ্ক রোগ কী, কেন ২৮ সেপ্টেম্বর পালিত হয় জলাতঙ্ক দিবস, জেনে নিন বিস্তারিত

| Sep 28 2022, 03:55 PM IST

জলাতঙ্ক রোগ কী, কেন ২৮ সেপ্টেম্বর পালিত হয় জলাতঙ্ক দিবস, জেনে নিন বিস্তারিত

সংক্ষিপ্ত

২৮ সেপ্টেম্বর লুই পাস্তুরের মৃত্যুবার্ষিকী, তাই এই দিনটিকে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উদযাপনের উদ্দেশ্য হল জলাতঙ্ক রোগের বিপদ এবং জলাতঙ্কের চিকিৎসা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা।
 

প্রতি বছর ২৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত হয়। এর উদ্দেশ্য হল জলাতঙ্ক রোগ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা। জলাতঙ্ক একটি বিপজ্জনক রোগ, সামান্য ভুলও হতে পারে মৃত্যুর কারণ। আসুন জেনে নিই জলাতঙ্ক কী, কীভাবে ছড়ায় এবং কীভাবে এর বিপদ এড়ানো যায়। 

কেন জলাতঙ্ক দিবস উদযাপন?
প্রথম জলাতঙ্ক ভ্যাকসিন ১৮৮৫ সালে তৈরি হয়েছিল। এই ভ্যাকসিনটি বিখ্যাত মাইক্রোবায়োলজিস্ট লুই পাস্তুর তৈরি করেছেন। ২৮ সেপ্টেম্বর লুই পাস্তুরের মৃত্যুবার্ষিকী, তাই এই দিনটিকে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উদযাপনের উদ্দেশ্য হল জলাতঙ্ক রোগের বিপদ এবং জলাতঙ্কের চিকিৎসা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা।

Subscribe to get breaking news alerts

এই বছরের থিম কি-
সারা বিশ্ব আজকের দিনে পালিত হচ্ছে জলাতঙ্ক দিবস। জলাতঙ্ক সম্পর্কে সচেতনতা আনতে, প্রতি বছর একটি নতুন থিম নির্ধারণ করা হয় এবং তারপরে জলাতঙ্ক দিবস পালিত হয়। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য 'ব়্যাবিস: এক স্বাস্থ্য, শূন্য মৃত্যু'। 

জলাতঙ্ক কি-
জলাতঙ্ক একটি অত্যন্ত বিপজ্জনক রোগ। এতে মস্তিষ্কে ফোলাভাব হয়। এর উপসর্গ কয়েকদিন পর দেখা যায়। জলাতঙ্ক রোগে ক্লান্তি, মাংসপেশিতে খিঁচুনি হওয়ার মতো উপসর্গ দেখা যায়।


কিভাবে এই রোগ ছড়ায়-
পশুর কামড়ে এই রোগ ছড়ায়। লাসা ভাইরাস বহনকারী প্রাণীর কামড়ে জলাতঙ্ক ছড়াতে পারে। জলাতঙ্ক রোগের ৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রে কুকুর এই রোগের জন্য দায়ী। কুকুর, বিড়াল ও বানরের কামড়ে জলাতঙ্ক ছড়াতে পারে। পশুর ক্ষত এবং চোখ থেকেও জলাতঙ্ক ছড়াতে পারে। 

আরও পড়ুন- চুল অতিরিক্ত পাতলা, এভাবে যত্ন নিন নাহলে টাক হতে বেশি সময় লাগবে না

আরও পড়ুন- উৎসবের মরশুমে নিজেকে সুন্দর ও স্টাইলিশ দেখাতে অবশ্যই এই মেকআপ টিপসগুলি

আরও পড়ুন- পুজোয় আপনার সুবাসে মেতে উঠুক চারপাশ, ফ্ল্যাট ৫০ শতাংশ ছাড়ে মিলছে এই ব্র্যান্ডেড

কিভাবে এড়াতে পারবেন এই রোগ-
পশুর কামড়কে হালকাভাবে গ্রহণ করা অপ্রতিরোধ্য হতে পারে। গরু, কুকুর, বিড়াল, মহিষ বা বানরের মতো কোনও প্রাণী কামড়ালে বাড়িতে চিকিৎসা না করে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান। ডাক্তার জলাতঙ্কের বিরুদ্ধে টিকা দেবেন, যা জলাতঙ্কের ঝুঁকি এড়াবে। আপনি যদি ঘরে বসে ক্ষতের চিকিৎসা করেন, তাহলে ওই সময়ে কিছুই না, কিন্তু পরে জলাতঙ্কের লক্ষণগুলি আপনাকে ঘিরে ফেলতে পারে, তাই একেবারেই অসতর্ক হবেন না।