সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে চলছে বিক্ষোভ আন্দোলন। রাজধানী দিল্লি, কলকাতা, বেঙ্গালুরু সব খানেই পথে নেমেছেন অগণিত মানুষ। চেন্নাইতেও চিত্রটা একই রকম। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে পুলিশ বিক্ষোভ করার অনুমতি না দিলেও পথে নামলেন কয়েক হাজার মুসলিম নাগরিক। প্রায় ১৫ হাজার মানুষের সমাগম হয়েছিল এই বিক্ষোভ সমাবেশে।

আরও পড়ুন: বিয়ের আসরে কাঁদছিল কনে, নেচে নববধূর ঠোঁটে হাসি ফোটালেন দুলহেরাজা, ভাইরাল হল ভিডিও

সচিবালয় ও জেলা কালেক্টর অফিস ঘিরে রাখার পরিকল্পনা নেয় বিক্ষোভকারীরা। মাদ্রাজ হাইকোর্ট আন্দোলনকারীদের তামিলনাড়ু বিধানসভা পর্যন্ত পদযাত্রা করার বিষয়ে নিষেধ করেছিল। এর প্রত্যুত্তরে বিক্ষোভকারীরা জানিয়ে দেন, তাঁরা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদে রয়েছেন এবং বিধানসভা ভবনের দিকে যাচ্ছেন না। এদিকে বিশাল সংখ্যক বিক্ষোভকারীর সমাগম দেখে গোটা এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় প্রশাসন। 

 

 

এদিনের প্রতিবাদ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিল একাধিক মুসলিম সংগঠন। উচ্চ আদালতের আদেশ তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় বলে দাবি করেন এই সংগঠনের নেতৃত্বরা। মামলায় তাদের বিবাদীপক্ষ করা হয়নি বলেই এমন বক্তব্য রাখেন তারা। 

আরও পড়ুন: মুম্বইয়ের বস্তির জয়জয়কার মার্কিন মুলুকে, আমেরিকা'স গট ট্যালেন্টের সেরা 'ভি আনবিটেবল'

বিক্ষোভকারীরাদের  দাবি, গত বছর  ডিসেম্বরে  সংসদে পাশ হওয়া সিএএ-র বিরুদ্ধে একটি প্রস্তাব পাশ করা হোক তামিলনাড়ু বিধানসভায়। ঠিক যেমনটা পাশ হয়েছে  প্রতিবেশী কেরল, পশ্চিমবঙ্গ সহ একাধিক রাজ্যে। তবে তামিলনাড়ুর শাসক দল ইতিমধ্যে  এআইএডিএমকে ইতিমধ্যে  সিএএ-কে সমর্থন জানিয়েছে। যদিও সরকার আশ্বাস দিয়েছে, ভারতীয় নাগরিকদের উপর কোনো প্রভাব ফেলবে না নতুন নাগরিকত্ব আইন।

এ দিন তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী  ই পালানিস্বামী বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে  'সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি' বজায় রাখার আবেদন জানান। তিনি জানান, তামিলনাড়ু সরকার মুসলমানদের বিরুদ্ধে কোনো রকমের পদক্ষেপই নিচ্ছে না।