সোমবার, এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁর সঙ্গে হাত মেলালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এদিন রাতে জানানো হয়েছে, টেলিফোনে ফরাসী প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা হয়েছে নরেন্দ্র মোদীর। ম্য়াক্রঁ-কে আশ্বস্ত করে মোদী জানিয়েছেন, সন্ত্রাসবাদ, উগ্রপন্থা ও ইসলামি চরমপন্থা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারত, ফ্রান্সের পাশে আছে। ফান্সের সাম্প্রতিক সন্ত্রাসবাদী হামলার জন্য ফরাসী প্রেসিডেন্টের কাছে সমবেদনাও ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন - বাংলাদেশ কি চলে যাবে ইসলামি চরমপন্থীদের হাতে - ভয় ধরাচ্ছে হেফাজত-এ-ইসলাম, দেখুন ছবিতে ছবিতে

আরও পড়ুন - চেয়েছিলেন 'গুলি খাওয়ার অনুমতি', ১১ দিন পর মিলল নৌসেনার পাইলটের নিথর দেহ

আরও পড়ুন - এবার কি হেট স্পিচ নিয়ে আসবে নতুন আইন - গুরুত্বপূর্ণ রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট

গত অক্টোবরে ফ্রান্সে ক্লাসরুমে ইসলামি নবি হজরত মহম্মদের একটি  ব্যাঙ্কচিত্র প্রদর্শনের এক ফরাসি শিক্ষকের শিরশ্ছেদ করেছিল তাঁরই এক ছাত্র। তারপর পরপর বেশ কয়েকটি ছুরি হামলার ঘটনা ঘটে। ম্যাক্রঁ এইসব হামলাকে সন্ত্রাসবাদ বলে ঘোষণা করে তীব্র নিন্দা করেছিলেন। তারপর থেকেই সারা বিশ্বে ইসলামি চরমপন্থীরা ম্যাক্রঁ তথা ফ্রান্সের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। পাকিস্তান-তুরস্কের মতো দেশের রাষ্ট্রনেতারা পর্যন্ত ম্যাক্রঁর সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। বাংলাদেশের রাজধানি ঢাকা-তে পর্যন্ত বিরাট ফরাসী বিরোধী মিছিল হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে এই বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করে দিল ভারত সরকার।

তবে শুধু ইসলামি চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পাশে থাকার বার্তা দেওয়াই নয়, সোমবার টেলিফোনে দুই রাষ্ট্রনেতার দীর্ঘ কথোপকথনে বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক বিষয় উঠে এসেছে। যার মধ্যে ছিল - কোভিড-১৯'এর ভ্যাকসিনের সংগ্রহের এবং সাশ্রয়ের বিষয় কীভাবে উন্নত করা যায়, কোভিড-পরবর্তী সময়ে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার, ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে পারস্পরিক সহযোগিতা ও স্বার্থরক্ষা, সমুদ্র সুরক্ষা, প্রতিরক্ষা সহযোগিতা, ডিজিটাল অর্থনীতি এবং সাইবার সুরক্ষা, বহুপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করা, জলবায়ু পরিবর্তন ও জীব বৈচিত্র্যের মতো বিষয়। জনস্বাস্থ্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর ম্যাক্রঁ-কে ভারতে আসার জন্য আমন্ত্রণও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।