সন্তানদের নিয়ে মর্তে আসার সময় হয়েছে মায়ের। অপেক্ষা আর মাত্র কিছুদিনের। মহালয়া থেকেই কলকাতার বিভিন্ন থিমের পুজোর দেখার জন্য ভিড় জমে রাস্তায়। তবে শুধুমাত্র পুজো প্যান্ডেলই নয় কলকাতার পুজোর মধ্যে শামিল বনেদি বাড়ির পুজোও। এইসব বাড়ির পুজোগুলি বেশি জাঁকজমকপূর্ণ না হলেও প্রতিটি বাড়িই বহন করছে নিজ নিজ ইতিহাস ও পরম্পরা। সাবেকি বাড়ির  মধ্যে অন্যতম হল হাটখোলা দত্ত বাড়ির পুজো। 

আরও পড়ুনঃ নাম লেখাননি এখনও, দেরি না করে অংশ নিন এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এ

১৭৯৪ সালে প্রথম পুজো শুরু হয় হাটখোলা দত্ত পরিবারের দুর্গা পুজো। তারপর থেকেই আজও একইরকম নিষ্ঠা ও ভালোবাসার সঙ্গে চলে আসছে এই পুজো। আসলে দত্ত পরিবার হল বালির প্রাচীন দত্ত পরিবারের একটি শাখা। অষ্টাদশ শতকের শেষ ভাগে আন্দুলের দত্ত চৌধুরী পরিবারের রামচন্দ্র দত্ত হাটখোলা অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে শুরু করেন দুর্গা পুজো। পরবর্তীকালে রামচন্দ্রের পৌত্র জগতরাম দত্ত ৭৮, নিমতলা ঘাট স্ট্রিটে এক ভদ্রাসন নির্মাণ করে সেখানেও শুরু করেন দুর্গা পুজো। জগত্রাম ছিলেন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির পটনা ওয়্যার হাউসের আমদানি রপ্তানির দেওয়ান। তাঁর পর এখন ওই বাড়িতে বসবাস করেন ওনার পৌত্ররা।

আরও পড়ুনঃ বেলেঘাটা সন্ধানী তে বৈদিক সভ্যতা এবং আধুনিক সভ্যতার ছায়া দেখা যাবে একই সঙ্গে

তবে এ বাড়ির প্রতিমায় রয়েছে আলাদা কিছু বৈচিত্র্য। সাবেকি প্রতিমাকে ডাকের সাজ পরানো হয়। আজও ঐ প্রতিমায় দেখা যায় হাতে আঁকা শাড়ি। এ বাড়ির প্রতিমার বাহন সিংহ ঘোটক আকৃতির। তবে আসল সৌন্দর্য তো দুর্গা প্রতিমার চালাতে। এ বাড়ির মঠচৌরি শৈলীর চালাতে থাকে অসাধারন সব মাটির অলংকরণ। তাতে আঁকা থাকে কৃষ্ণলীলা ও চণ্ডীর কাহিনী। 

থিম পুজো ছেড়ে যদি বনেদি বাড়ির পুজোর স্বাদ নিতে চান তাহলে একবার ঘুরে আসতেই পারেন ৭৮, নিমতলা ঘাট স্ট্রিটের এই বাড়িতে।