মুর্শিদাবাদে পুর নির্বাচনে মানুষ কি অবাধে ভোট দিতে পারবেন।  না পঞ্চায়েত ভোটের পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে এই নির্বাচনে। রাজ্য় নির্বাচন কমিশনের কাছে সেই প্রশ্নের জবাব চাইলেন অধীর চৌধুরী। লোকসভায় কংগ্রেসের এই বিরোধী দলনেতার মতে,পুরভোটেও আতঙ্কে ভুগছে মানুষ। তাই মুর্শিদাবাদের মানুষের হয়ে কমশিনের কাছে জবাব নিতে  এসেছেন তিনি। 

টাকা তোলার বার্তায় প্রতারণার নয়া ছক, সতর্ক করল কলকাতা পুলিশ

পরিসংখ্যান বলছে, মুর্শিদাবাদে সাতটি পুরবোর্ড নতুন করে গঠিত  হবে। আগামী দিনে যার জন্য নির্বাচন হবে রাজ্য়ে। অধীর চৌধুরীর অভিযোগ,অতীতে পুলিশ আর তৃণমূলের গুন্ডারা মিলে মুর্শিদাবাদে ভোট করিয়েছে। মানুষকে পঞ্চায়েত নির্বাচনে ভোট  দেওয়া তো দূর,বিরোধীদের মনোনয়ন দাখিল  করতে দেওয়া হয়নি। চারিদিকে চলেছে কেবল ভোট লুঠের আসর। এবারও এরকমই কিছুর আশঙ্কা করছেন তিনি। 

একসঙ্গে দাম কমল পেট্রোল-ডিজেলের, স্বস্তিতে কলকাতাবাসী

নির্বাচন কমিশনকে সতর্ক করার পাশাপাশি আসন্ন পুর নির্বাচন নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি অধীর চৌধুরী। তাঁর টিপ্পনি,মুখ্য়মন্ত্রী রাজ্য়ের জন্য এত উন্নয়ন করেছেন, যে মুর্শিদাবাদের মানুষও তাকেই ভোট দেবে। কিন্তু কেউ যদি ভোটই না  দিতে পারে তাহলে তৃণমূল ফার্স্ট না কংগ্রেস লাস্ট তা বোঝা  যাবে না। তাই মাননীয়া মুখ্য়মন্ত্রীর কাছেও তাঁর অনুরোধ মুর্শিদাবাদের পুর নির্বাচনে মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন সেদিকে  নজর দিন। 

২৪ এপ্রিলই হতে পারে পুরভোট, কমিশনে চলছে জোর গুঞ্জন

এ প্রসঙ্গে মুর্শিদাবাদের প্রাক্তন এসপি  মুকেশ কুমারের নামেও ভোট লুঠে জড়িত থাকার অভিযোগ করেছেন অধীর। তাঁর অভিযোগ, আগে তৃণমূলের এই গুন্ডাবাহিনীর  সঙ্গে থেকেই এলাকায় ভোট করিয়েছেন মুকেশ কুমার। যার উপহার স্বরূপ মুকেশকে ডিআইজি পদ মর্যাদায় উন্নীত করা হয়েছে। এবার মুর্শিদাবাদের পুরভোটে তৃণমূলের আরও ভালো ফল করাতে পারলে তাঁর আরও পদোন্নতি হবে।