মুখ্যমন্ত্রীর মিম শেয়ার নিয়ে বিতর্ক নতুন ঘটনা নয়। ভোটের আগেই হাওড়ার মহিলা মোর্চার নেত্রী প্রিয়ঙ্কা শর্মা ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি বিকৃত করার অভিযোগে রাতারাতি গ্রেপ্তার হন।  আরও একবার  মিম শেয়ার হল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে। নতুন মিমে দেখা গিয়েছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতীয় জনতা পার্টির সদস্য।  শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, মিমে ব্যবহৃত হয়েছে জাতীয় কংগ্রেসের প্রধান মুখ রাহুল গান্ধীর ছবিও।

আরও পড়ুনঃ দলে সদস্য বাড়াতে হবে, 'মিশন' নিয়ে শহরে আসছেন শিবরাজ চৌহান
গান্ধীজির সার্ধশতবর্ষে ১৫০ কিলোমিটার পদযাত্রার ডাক দিলেন নরেন্দ্র মোদী
 

তৃণমূলের তরফে তীব্র ধিক্কার জানানো হয়েছে গোটা ঘটনার। মঙ্গলবার বিধানসভায় সাংবাদিক বৈঠকে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ঠিক কেমন এই মিম? এমনই মিম দেখা যাচ্ছে, বিজেপির সদস্যপদের একটি পরিচয়পত্রের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ বসানো ক্রমিক নম্বর-সহ। প্রসঙ্গত, বিজেপির সদস্য গ্রহণ শুরু হয়েছে গোটা দেশ জুড়েই। গত ৬ জুলাই থেকে সদস্যপদের পুনর্নবীকরণ করা হচ্ছে। এই বাংলাতে আগামী ৩১ জুলাই শিবনাথ চৌহান নিজে আসছেন সদস্যপদ নবীকরণ অনুষ্ঠানটিকে আরও গতি দিতে। সেই সদস্যপদের পরিচয়পত্রই ব্যবহার হয়েছে মিম বানাতে। 

প্রসঙ্গত এই প্রথম নয়। ভোট চলাকালীন সময়েই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ বলিউড তারকা প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার ছবিতে বসিয়ে পোস্ট করেন। এর পরে তাঁর বিরুদ্ধে এলাকার প্রাক্তন কাউন্সিলর বিভাস হাজরা অভিযোগ দায়ের করলে আসরে নামে পুলিশ।  ১৪ দিনের জেল হেফাজত হয় তাঁর। এর পরেই ১৪ মে শীর্ষ আদালত ঘটনার নিন্দা করেন। প্রিয়ঙ্কাকে লিখিতভাবে ক্ষমা চাইতে বলা হয়। একই সঙ্গে তাঁকে জেল থেকে মুক্তি দিতেও নির্দেশ দেওয়া হয়। সুপ্রিম কোর্ট সরাসরি বলেছিল, রাজ্য সরকার চাইলে প্রিয়ঙ্কার বিরুদ্ধে মামলা করা যেতে পারে। কিন্তু তাঁকে অবিলম্বে জেল থেকে মুক্তি দিতে হবে। সেটা ছিল মঙ্গলবার। কার্যক্ষেত্রে প্রিয়ঙ্কাকে ছাড়া হয় একদিন পরে, অর্থাৎ বুধবার। তাই নিয়ে শীর্ষ আদালতে কার্যত মুখ পুড়েছিল রাজ্যের।
কিন্তু এই বার ? কী সাফাই দেবে দল?