মুখ্যমন্ত্রীর মস্তিষ্কপ্রসূত প্রকল্পের শেষ নেই। সারা পৃথিবীতে ইতিমধ্যেই প্রশংসিত হয়েছে কন্যাশ্রীর মতো উদ্যোগ। এদিন সম্পূর্ণ নতুন প্রকল্পের কথা জানান দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

পরিবাহ কাণ্ডের সময়ে কর্মবিরতি ঘোষণা করেছিলেন চিকিসকরা। এই সময়ে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী চিকিৎসকদের সঙ্গে বৈঠকের করপলে সমস্যা সামাধানের সূত্র হিসেবে বেরিয়ে এসেছিল স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পতে জোর দেওয়ার কথা। সেই প্রকল্পের আওতাতেই এ দিন নতুন অ্যাপ আনার কথা ঘোষণা করল রাজ্য সরকার।  এসএসকেএম-এ একটি পুরস্কার প্রদানের মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এবার 'পথবন্ধু' নামে একটি অ্যাপ চালু করবে। রাজ্য সরকারের এই অ্যাপ মারফত 'পথবন্ধুদের' সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনাগ্রস্ত মানুষেরা।

স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে 'পথবন্ধু' কারা? উত্তরে রয়েছে চমক। মুখ্যমন্ত্রী চান পথবন্ধু হিসেবে রাস্তার ধারের চা,পান,বিড়ির দোকানের সাধারণ দোকানিকেই প্রশিক্ষণ দিক রাজ্য সরকার। অর্থাৎ কোনও দুর্ঘটনা ঘটলেই প্রাথমিক চিকিৎসার বন্দোবস্ত যাতে হয়ে যায় সেই জন্যেই একদমই সাধারণ মানুষকে ন্যূনতম প্রশিক্ষণ দিতে চলেছে রাজ্য সরকার। কাজের বিনিময় পথবন্ধুদের জুটবে পারিশ্রমিক। বাড়তি রোজগারেরে সংস্থানের এই সুযোগ নিশ্চয়ই নতুন করে বহু মানুষকে উদ্বুদ্ধ করবে 'পথবন্ধু' হতে। আরেকটি কথাও এ প্রসঙ্গে বলার, গ্রামেগঞ্জে আজও প্রাথমিক চিকিৎসার জন্যে দূরদূরান্তের হাসপাতালে যেতে বিপুল দুর্ভোগ হয় রোগীর পরিবারের। এই প্রকল্প সেক্ষেত্রে সাপে কাটা বা অন্য কোনও আঘাতের ক্ষেত্রে প্রাথমিক চিকিৎসাটুকু দেবে। 

আরও পড়ুনঃ এনআরএস-এর অভিযুক্তদের জামিন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ফের পথে নামতে পারেন চিকিৎসকরা
সাপে কাটার ভয়! মুখ্যমন্ত্রী জানালেন কেন তিনি এলিয়ট পার্ক যান না
 

প্রসঙ্গত এদিন মঞ্চ থেকে জল ধরো জল ভরো প্রকল্প নিয়েও বিবিধ কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এসেছে ডাযাবেটিসের মতো মারণ রোগের প্রসঙ্গও।