করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি নিয়ে এবার কলকাতার এনআরএস-এ ভর্তি কেরলের এক ডাক্টারি পড়ুয়া। তাঁর শরীরে করোনা উপসর্গ মিলতেই, তার কাছাকাছি যারা ছিল, তাদের খোঁজ করতেই তাঁর বন্ধু খোঁজ মেলে। আপাতত দুইজনকেই এনআরএস-এ ভর্তি করা হয়েছে।   আজ বৃহস্পতিবারই  ওই পড়ুয়ার নমুনা সংগ্রহ করে পুণের নাইসেডে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

আরও পড়ুন, করোনা মোকাবিলায় নয়া নির্দেশিকা, প্রতিটি হাসপাতালে ৬ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড

সূত্রের খবর, কেরলের বাসিন্দা, শিয়ালদা আর আহমেদ ডেন্টাল কলেজের ওই ছাত্রী বেশ কিছুদিন ধরেই হোস্টেলের মধ্যে প্রচণ্ড জ্বরে ভুগছিলেন। এরপরই ওই ডাক্টারি পড়ুয়াকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁর শরীরে একাধিক নোভেল করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখতে পান। তারপরই দ্রুত তাঁকে পাঠানো হয়েছে এনআরএস হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে। এরপরই ওই ছাত্রীর সংস্পর্শে আসা বাকিদেরও খোঁজ চলে। অবশেষে এখনও অবধি পাওয়া খবরে  মেলে তাঁর রুমমেটের খোঁজ পাওয়া যায়। এরপরেই তাঁকেও দ্রুত আইসোলেশনে ভর্তি করে পর্যবেক্ষণের নির্দেশ দেওয়া হয় ২ জনকেই এনআরএস হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার সকালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে দুই ডাক্টারি পড়ুয়াকে পর্যবেক্ষণ করতে যান হাসপাতাল সুপার সৌরভ চট্টোপাধ্যায় এবং নার্সিং সুপার সহ একাধিক চিকিৎসক। বৃহস্পতিবার সকালে, চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে দেখেন তাঁর উচ্চমাত্রায় জ্বর রয়েছে।

আরও পড়ুন, পাশ করলেই খুলবে দরজা, নবান্নে বসল নয়া মেশিন

সূত্রে খবর,  আজ বৃহস্পতিবারই  ওই পড়ুয়ার নমুনা সংগ্রহ করে পুণের নাইসেডে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  জানা গিয়েছে, কয়েকদিন আগে কেরল থেকে শিয়ালদা আর আহমেদ ডেন্টাল কলেজের হস্টেলে ফিরেছেন ওই চিকিৎসক পড়ুয়া।  ফেরার পরই তিনি সর্দি কাশি সহ প্রচণ্ড জ্বরে পড়েন। এদিকে এই ঘটনায় রীতিমত আতঙ্ক ছড়িয়েছে ডেন্টাল কলেজে এবং হোস্টেলে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে দেশের মধ্যে অন্যতম করোনা প্রভাবিত রাজ্য হল কেরল। 

আরও পড়ুন, আপাতত স্বস্তি, করোনা আক্রান্তের বাবা-মায়ের রিপোর্ট নেগেটিভ