রাজাবাজারের চাল পট্টিতে বিধ্বংসী আগুন। আগুন লাগে দুপুর দুটো নাগাদ। ঘটনাস্থলে দমকলের ১১ ইঞ্জিন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনুমান বাজারের পাশে নতুন করে তৈরি হওয়া একটি ল্যামিনেশন কারখানার গুদামে প্রথম আগুন লাগে। সেখানে থেকেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে চাল পট্টিতে। দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। 

আরও পড়ুন, স্কুল পড়ুয়াদের দেওয়া হচ্ছে নিরামিষ মিড-ডে মিল, অভিযোগ কলকাতা পুরসভার বিরুদ্ধে


যুদ্ধকালীন তৎ‍‌পরতার সঙ্গেই চলে আগুন নেভানোর কাজ। দমকল এর পাশাপাশি আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগিয়েছেন স্থানীয় মানুষেরা। তবুও এক ঘণ্টা পরেও আগুন এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। ঘিঞ্জি এলাকার দরুণ দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। আগুন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। প্রত্যক্ষর্শীদের কথায়, আগুন লাগার খবর ছড়িয়ে পড়তেই বাড়ি থেকে একপ্রকার খালি পায়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন চালপট্টির বেশিরভাগ ব্য়বসায়ী।

আরও পড়ুন, বইমেলার পর রাজাবাজার, সিএএ নিয়ে ফের সরব স্বরা


উল্লেখ্য় কেষ্টপুর, উল্টোডাঙা, কাকুড়গাছি, আনন্দপুর, পার্কসার্কাস, কসবা একের পর এক জায়গায় নতুন বছরে অগ্নিকান্ড হয়েছে।  সেই ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার পেতে শহরে আসতে চলেছে চারটি  রোবট। যেখানে আগুনের মাত্রা অত্যন্ত তীব্র হবে এবং দমকলকর্মীরা  কাজ করতে পারবে না, সেখানে ব্যবহার করা হবে এই রোবট ফায়ারফাইটারদের। যা ১০০ মিটার দূর থেকে অগ্নিনির্বাপণের কাজ করতে পারবে। এছাড়াও আসতে চলেছে একটি ১০০ মিটারের অত্যাধুনিক ল্যাডার ও দুটি মোবাইল কন্ট্রোল রুম।