বাংলা দখল করতে মরিয়া বিজেপি। দীপাবলি শেষ হতেই বাংলায় ঘাঁটি গেড়েছেন দিল্লিত তাবড় নেতারা। গেরুয়া শিবিরের নির্বাচনী প্রস্তুতিতে রণকৌশল ঠিক করতে ইতিমধ্যেই রাজ্য়ে এসেছেন সুনীল দেওধর, বিনোদ তাওড়ে, হরিশ দ্বিবেদী, দুষ্মন্ত গৌতম এবং বিনোদ সোনকর। গঙ্গাপাড়ে নবান্ন দখল করতে এই পাঁচ নেতাকে বাংলায় এনেছে বিজেপি। বিজেপির এই কেন্দ্রীয় দলকে বহিরাগত বলে কটাক্ষ করলেন কলকাতার পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিম।

''বহিরাগতরা বাইরে থেকে এসে বাংলায় দাপাদাপি করলে বাংলার মানুষ কোনদিন তা মেনে নেবে না।  বর্গীরা যখনই আক্রমণ করবে বাংলার মানুষই তখন রুখে দাঁড়াবে, সাধারণ মানুষ বাংলায় এলে কোন সমস্যা নেই কিন্তু বর্গী আক্রমন করলে বাংলার মানুষ তার প্রতিবাদ করবে''। ইন্দিরা গান্ধীর জন্ম দিবস উপলক্ষে তার মূর্তিতে মাল্যদান করতে এসে এই কথা বললেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।  তিনি বলেছেন, ''বহিরাগতরা বাংলা এসে দাপাদাপি করবে এটা বাংলার মহান মনীষীদের অপমান। এই অপমান আমরা কোনদিন সহ্য করব না। বাংলার মানুষ এই অপমান মেনে নেবে না''। বিজেপিকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের। 

আরও পড়ুন-বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে তৃণমূলকর্মীকে কুপিয়ে খুন, ব্যাপক বোমাবাজিতে উত্তপ্ত জগদ্দল

প্রসঙ্গত নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম দিবস কে জাতীয় ছুটি ঘোষণার যে দাবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, তাকে পূর্ণ মান্যতা দিয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেছেন, ''নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর দেশের জননেতা। তাঁর জন্ম দিবসকে জাতীয় ছুটি হিসেবে গণ্য করা উচিত''। এ প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের তীব্র কটাক্ষ করেছেন তিনি। 

আরও পড়ুন-অতমারি থাকলেও বাংলা সহ অন্য রাজ্যে সঠিক সময়ে ভোট, ইঙ্গিত দিলেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার
তবে শুভেন্দু অধিকারী প্রসঙ্গে বিশেষ কোনো মন্তব্য করতে চাননি ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেছেন, ''সমবায় সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে জনসভা করছেন তিনি। তবে এই বিষয়ে যদি কোন মন্তব্য করতে হয় তাহলে দল বিবৃতি পেশ করবে''।