শহর কলকাতার ট্য়াংরায় একটি বন্ধ পার্কের লোহার গেট ভেঙে মৃত্য়ু হল কিশোরীর। গেটের অবস্থা যে ভাল ছিল না, সে কথা মেনে নিয়ে নিয়েছেন কাউন্সিলার। মূলত মেরামতির জন্য়ই ওই পার্ক বন্ধ ছিল। আর এদিকে নরবড়ে লোহার গেটের উপর খেলতে গিয়েই হল এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

আরও পড়ুন, পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে দক্ষিণবঙ্গে বাড়বে তাপমাত্রা, উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা

ট্য়াংরার ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডের ডি সি দে রোডে পুরসভার এই পার্ক কয়েকদিন ধরেই বন্ধ ছিল। শনিবার দুপুরে পার্কের লোহার গেটের উপরে উঠে খেলা করছিল কয়েকজন শিশু। আর তারপরেই হঠাৎ ঘটে যায় দুর্ঘটনা। লোহার গেটটি পুরোপুরি বেকায়দাভাবে ভেঙে পড়ে। বাকি শিশুরা কোনও ভাবে রক্ষা পেলেও প্রাণ হারায় বছর এগারোর সুশীলা হালদার। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে শিশুটির ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়ে। গুরুতরভাবে জখম হয় আরও ২ জন। সুশীলাকে এনআরএস হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁকে মৃত ঘোষনা করা হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, মাত্র ২ বছর আগে ওই গেটটি বসানো হয়েছিল। মাত্র ২ বছরের মধ্যেই মরচে পড়ে বেহাল দশা গেটের। গেটটি যে দুর্বল ছিল তা জানতেন এলাকার কাউন্সিলরও।

আরও পড়ুন, এবার নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে পথে নামলেন অনির্বাণ-অনীকরা

স্থানীয় কাউন্সিলর স্বপন সমাদ্দার জানিয়েছেন,এই ঘটনায় করপোরেশনের কোনও দোষ নেই। এটি নিছক একটি দুর্ঘটনা । ট্য়াংরার ওই পার্কটি দীর্ঘদিন ধরে একটি আবর্জনার স্তূপ হয়ে পড়েছিল। সম্প্রতি ওখানে একটি বাচ্চাদের স্কুল, কমিউনিটি হল ও পার্কটিকে একটি খেলার মাঠ তৈরির কাজ চলছিল। গত ১৬  জানুয়ারি একটি গাড়ি ঘোরাতে গিয়ে ওই গেটে ধাক্কা মারে। আর তারপরেই গেটটি আরও নরবড়ে হয়ে যায়। এর ফলেই ঘটে এই দুর্ঘটনা। তিনি আরও জানিয়েছেন, প্রত্যেকটা মৃত্যু দুঃখ জনক। তিনি ওই দরিদ্র পরিবারের পাশে আছেন।