নববর্ষে  রাজ্য়পালকে মেয়রের হাত দিয়ে মিষ্টি পাঠিয়েছিলেন মমতা। দীর্ঘদিনের সংঘাত বোধহয় নতুন বছরে মিটে গেল ভেবেছিল রাজনৈতিক মহল। কিন্তু না পয়লাবৈশাখে মমতার থেকে মিষ্টি উপহার পেয়েই তার পরদিনই ফের বাংলার লকডাউন সফল করতে রাজ্য় পুলিশের ব্য়র্থতা তুলে আধা সেনার নিয়োগের সওয়াল করেছিলেন রাজ্য়পাল। এরপর রেশন নিয়ে রাজনীতি, মুখ্য়মন্ত্রী শহরের রাস্তায় নেমে করোনা সতর্কতা মাইকিং প্রায় সব দিক থেকেই রাজ্য়ের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্য়পাল। তবে শেষবার মুখ্য়মন্ত্রীর পাঠানো চিঠি পেয়ে পারস্পরিক সংঘাত এমনই পর্যায়ে গিয়ে দাড়াল, রাজ্য়পাল ১৪ পাতার চিঠি পাঠালেন মুখ্য়মন্ত্রীকে।  রাজ্য়পাল স্পষ্ট অভিযোগ জানালেন,'করোনা ঠেকাতে রাজ্য সরকার ব্যর্থ'। মোট ৩৭ দফা অভিযোগ এনে তোপ দাগলেন তিনি।

আরও পড়ুন, 'ফিল্ড ভিজিটের দরকার নেই-ছুটি কাটান কলকাতায়', কেন্দ্রীয় দলকে কোনও তথ্য প্রদান নয় স্পষ্ট জানাল রাজ্য


মুখ্যমন্ত্রীর ৫ পাতার চিঠির প্রসঙ্গ তুলে, ১৪ পাতার পাল্টা চিঠি দিয়েছেন রাজ্য়পাল। এনেছেন ৩৭ দফা অভিযোগ। তবে পারস্পরিক সংঘাতে 'নির্বাচিত' ও 'মনোনীত' শব্দ দুটোই আরও উসকে দিয়ে তাপ। চিঠিতে বলা হয়েছে, 'করোনা ঠেকাতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ রাজ্য সরকার। দৃষ্টি ঘোরানোর জন্য়ই লাগাতার রাজনীতি করা হচ্ছে। সংখ্যালঘু তোষণের রাজনীতি চলছে। তথ্য গোপনের চেষ্টা করছেন। আমার ভাষা সম্পর্কে আপনার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে। আপনি বলছেন রাজ্যপাল মনোনীত, রাজ্যপাল মনোনীত নন, রাজ্যপাল নিযুক্ত। সংবিধান মেনেই রাজ্যকে কাজ করতে হয়। আমাকে অন্ধকারে রেখে সমস্ত কাজ চলছে।'উল্লেখ্য, রাজ্যপালকে দেওয়া ৫ পাতার  চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেছিলেন, 'আপনার শব্দচয়ন এবং বলার ভঙ্গি অসাংবিধানিক। আপনি হয়তো ভুলে গিয়েছেন, আমি নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী, আর আপনি মনোনীত রাজ্যপাল।'

 

 

আরও পড়ুন, রাজ্য়ের করোনা পরিস্থিতি 'চূড়ান্ত বিরক্তিকর', মুখ্যমন্ত্রীকে খোলা চিঠি পাঠিয়ে দাবি প্রবাসী

 

 

 তবে শুধু করোনা মোকাবিলা বা কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি আসার প্রসঙ্গ নিয়ে রাজ্যপাল তার পাঠানো চিঠিতে সীমাবদ্ধ রাখেননি। শুক্রবার এর পাঠানো চিঠিতে কেন্দ্রীয় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রসঙ্গ তুলে এনেলেন রাজ্যপাল। চিঠির একদম শেষ অংশে রাজ্য়পাল মুখ্য়মন্ত্রীর উদ্দেশ্য়ে লেখেন ' আপনি জানবেন রাজভবনে আপনার একটি বন্ধু আছে যে মানুষের স্বার্থে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে যানে।' শুক্রবার দ্বিতীয় দফার চিঠি পাঠানোর প্রসঙ্গ এদিন টুইট করে জানান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর। 

 

 

 

 

 

 করোনা সচেতনতায় মৌলালি ও বেহালায় মুখ্যমন্ত্রী, লকডাউন সফলে এলাকাবাসীকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি

  মেডিক্যালের ছোঁওয়া মানিকতলায়, করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে আসায় দমকল কেন্দ্রের ৩২ কর্মী কোয়রান্টিনে

বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্য়া, মেডিক্য়ালে চিকিৎসক ও সংক্রামিত রোগী থেকে কোয়ারেন্টিনে অন্তত আরও ৪৫

সঙ্ঘাত শেষেও ঘরবন্দি, করোনা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে মুখ্যসচিবকে চিঠি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের