কদিন আগেই করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য় কর্মীদের উদ্দেশ্য়ে কাসর, ঘণ্টা বাজানোর কথা বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। গতকালই রাজ্য়ের করোনা মোকাবিলায় হাসপাতালগুলি পরিদর্শনে বেরিয়েছিলেন মুখ্য়মন্ত্রী। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্য়মন্ত্রীর  তদারকিতেও থেকে গেল গাফিলতি। করোনা রোধী মাস্ক না পেয়ে বুধবার বেলেঘাটা আইডিতে বিক্ষোভে নামল নার্স , স্বাস্থ্য়কর্মীরা।

লকডাউনে বাইরে কেন, শুনেই পুলিশকে 'কামড়ালেন' যুবতী.

তাদের অভিযোগ, বার বার বলা সত্ত্বেও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী এন৯৫ মাস্ক পাচ্ছেন না তারা। এমনকী রাজারহাটের কোয়রান্টিন সেন্টারেও যে গাড়িতে রোগী নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সেই গাড়িতেই তাদের আসতে বাধ্য় করা হচ্ছে। করোনা প্রতিরোধী সঠিক পরিধানও দেওয়া হচ্ছে না তাদের। যার জেরে নিজেদের কর্তব্য করতে গিয়েও জীবনের ঝুঁকি নিতে হচ্ছে তাদের। 

আপাত স্বস্তি রাজ্য়ে,৪৬ জনের লালারসে পাওয়া গেল না করোনা

এ প্রসঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন নার্সরা। তাদের অভিযোগ, এরকম চললে আগামী দিনে কর্তব্য়ে বেঁকে বসবে স্বাস্থ্য় কর্মীরা। আগেই এ বিষয়ে সতর্ক  হওয়া উচিত হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। মঙ্গলবারই দেশজুড়ে লকডাউনের কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। স্বাস্থ্য়কর্মীদের সুরক্ষার কথা দেখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এমনকী যারা স্বাস্থ্য়কর্মীদের করোনার জন্য়  বাড়ি ছাড়তে বলছেন তাদের ক্ষেত্রেও কড়া ব্য়বস্থা নেবে সরকার। ইতিমধ্য়েই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সব রাজ্য়ের কাছে এই নির্দেস জারি  করা হয়েেছে।