করোনা রুখতে লকডাউনের মধ্যেই শুরু হতে চলেছে রমজান মাস। আর এ সময়ে রোজা রাখার দরুণ যত্রতত্র থুতু না ফেলার অনুরোধ করছেন মুসলিম ধর্মগুরুরা। রমজান উপলক্ষে মসজিদে ভিড় না জমিয়ে এ বছর মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের বাড়িতে বসে নমাজ পড়ার পরামর্শও দিচ্ছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন, বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্য়া, মেডিক্য়ালে চিকিৎসক ও সংক্রামিত রোগী থেকে কোয়ারেন্টিনে অন্তত আরও ৪৫

 

সামনের শনিবার থেকে শুরু হতে চলেছে রমজান মাস । সে সময়ে কঠোর ভাবে রোজা রাখতে গিয়ে অনেকেই থুতুও গিলতে চান না। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে সংক্রমণের ভয় এবং স্বাস্থ্য-বিধির কথা মাথায় রেখেই যেখানে সেখানে থুতু না ফেলার নির্দেশ দিচ্ছেন রাজ্যের মুসলিম ধর্মগুরুরা। নাখোদা মসজিদের ইমাম সফিক কাশেমি জানিয়েছেন, 'অনেকেই ভাবেন, থুতু গিলে ফেললে রোজা ভেঙে যাবে। যার জন্য রোজা রাখা অবস্থায় তাঁরা যেখানে সেখানে থুতু ফেলে থাকেন। এটা বড় কুসংস্কার তো বটেই। পাশাপাশি পরিবেশ দূষণেরও অন্যতম কারণ। বর্তমানে করোনাভাইরাস ঠেকাতে স্বাস্থ্য দফতরের তরফে থুতু ফেলা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। সাধারণ মুসলমানদের কাছে আমার আবেদন, রোজা রেখে যত্রতত্র থুতু ফেলবেন না।' রেড রোডের ইদের নমাজের ইমাম ফজলুর রহমানও এবিষয়ে সহমত প্রকাশ করেছেন এবং পাশাপাশি বলেছেন   'করোনা পরিস্থিতিতে কোনও ভাবেই মসজিদে ভিড় জমাবেন না। রমজান মাসে নমাজ নিজের বাড়িতে পড়ুন। আমিও নমাজ বাড়িতে পড়ছি। রমজান মাসেও বাড়িতেই নমাজ পড়ব।'

আরও পড়ুন, মোদির পাশে দাঁড়াতে মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ, সপ্তাহ ঘুরতেই নতুন সুরে টুইট রাজ্যপালের

অপরদিকে সাধারণত রমজান মাসে বহু মুসলিম ধর্মাবলম্বী মানুষ তাঁদের আয়ের একটা অংশ দুঃস্থ মানুষদের দিয়ে সেবা থাকেন। সন্ধ্যায় মসজিদে ইফতারের খাবারও বিলি করেন। বঙ্গীয় ইমাম অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মহম্মদ ইয়াহিয়া জানিয়েছেন, 'অন্যান্য বছরে যাঁরা মসজিদে ইফতারের পাশাপাশি দুঃস্থদের জন্য দান করতেন, তাঁদের কাছে আমরা আর্জি জানাচ্ছি যাতে তাঁরা সেই টাকা এ বছর মসজিদ কমিটির হাতে তুলে দেন। মসজিদ কমিটির তরফে সেই টাকা ও সাহায্য ওই এলাকার হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সমস্ত সম্প্রদায়ের মানুষের হাতে তুলে দেওয়া হবে।' 
 

 

  করোনা পজিটিভ প্রসূতির সুস্থ সন্তান, খুশির হাওয়া ফুলেশ্বরের হাসপাতালে

  করোনার কোপ এবার বাইপাসের ধারের বস্তিতে, ১৫০০০ মানুষকে পাঠানো হল কোয়ারেনন্টিনে

 ভেন্টিলেশনে করোনা আক্রান্ত রাজ্য়ের স্বাস্থ্য কর্তা ও সার্জন, উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দফতর

  'হটস্পট' এলাকা থেকে আসায় প্রসুতিকে ফিরিয়ে দিল এনআরএস, চরম যন্ত্রনা নিয়ে ঘরেই প্রসব-মৃত সদ্যোজাত